অনুভ্রমণ ডেস্ক

অনুভ্রমণ ডেস্ক

অনুভ্রমণ ডেস্ক

লিওনার্দোর ভিঞ্চি গ্রামে - ২

সারি সারি উপত্যকা, প্রতি পাহাড়ের মাথায় জনবসতি, কিছু কিছু স্থাপনা এতই অপার্থিব নির্জনতায় মোড়া, কল্পলোকের প্রেক্ষাপট বলে ভ্রম হয়।

লিওনার্দোর ভিঞ্চি গ্রামে

পাহাড়ের মাথায় অবস্থিত সবুজ বনানী পরিবৃত আর পাখির কূজনে ভরা অনন্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অধিকারিণী গ্রামটির চেয়ে ট্রিলিয়ন গুণ বেশী কৃতিত্বের অধিকারী মধ্যযুগে এখানে জন্ম নেওয়া এক ব্যক্তির, যার নাম লিওনার্দো, কিন্তু বিশ্ব তাকে চেনে ভিঞ্চি গ্রামের লিওনার্দো বা লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি নামে।

শাশুড়ি কেন ড্রাগন ? (শেষ পর্ব)

কিংবদন্তী বলে সেতুর উপরে দিয়ে কোন কুমারী হেঁটে গেলে যে কোন ড্রাগনের লেজ নড়ে উঠবে!

শাশুড়ি কেন ড্রাগন ? (২য় পর্ব)

লাল ইটের গির্জার সামনে উদয় হল সবজেটে বিশাল সরীসৃপ, কি বিকট তার মুখভঙ্গি, মনে হচ্ছে লেলিহান অগ্নিশিখা বাহির হবে এখনই

মধ্যরাতের আক্রোপোলিস, এথেন্সের স্কুইড ভাজা এবং রেবেকা

সুমসাম চারিদিক, অপার্থিব মনে হল পার্থননকে দূর থেকে, সেখানে কৃত্রিম আলো ফেলা হয়েছে সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য।

শাশুড়ি কেন ড্রাগন ?

নিদারুণ যুদ্ধ হল, যা কেউ কোনদিন দেখে নি শুনেও নি, জয়-পরাজয়ের পাল্লা একবার মানুষের দিকে হেলে তো পরমুহূর্তেই ড্রাগনের দিকে, কিন্তু শেষ মুহূর্তে আদমসন্তানের তরবারির এক কোপে বজ্জাত ড্রাগনের মুণ্ডুপাত ঘটল

জাগরেবের বোবান রেস্তোরাঁ

রুচিশীল পরিবেশ, উৎকট করে কিছু সাজানো নেই, যেমন নেই বোবান বা ক্রোয়েশিয়ান ফুটবল দলের নানা স্মারকও

মেরু ভালুকের দেশে - ৩

এ যেন আরেক সাহারা, দিক কাল পাত্র শূন্য, চারিদিকেই অথৈ নির্জনতা, হয়তবা এটাই পৃথিবীর সবচেয়ে দূষণমুক্ত অঞ্চল। আর কত বর্ণের যে বরফ!

মেরু ভালুকের দেশে - ২

পৃথিবীর উত্তরতম জনবসতি, আমাদের সামনে একেবারে রূক্ষ অবারিত শূন্য বিস্তৃত পাথূরে ঊষর সীমাহীন প্রান্তর, সেদিক পানে দৃষ্টি পড়তেই কেমন যেন এক শ্রদ্ধা আর ভয় মেশানো অনুভূতি

ভূতনাথের মেলাতে (শেষ)

প্রাচীন বাংলার সেই সময়টুকু ভীষণ ভাবে উপভোগ করলাম আমরা, সেই সাথে আরেকবার নতুন করে উপলব্ধি হল যে বাংলার মানুষ এমনই, সকল ধর্মের সকল জাতের মানুষ একসাথে মিলেমিশেই থাকবে।

মেরু ভালুকের দেশে - ১

তীব্র শীতকালে পান্না সবুজ ঝলমলে মেরুজ্যোতির আলোয় বই পড়া যায় সহজেই, ক্ষুদে শহরের বাহির হতে চাইলেই ভালুকের ভয়ে সাথে নিতে হয় ভারী বন্দুক,

ভূতনাথের মেলাতে

বাসের রাস্তার পাশেই বিস্তীর্ণ মাঠ, অন্যদিকে ফসলের ভূমি, মেঠো পথে খানিকটা হাঁটতেই মেলা শুরু, তারও ঢের আগে থেকে মেলাই আগত মানুষের লাইন

মধ্যযুগের এক বিকেলে - শেষ

মেলা দেখতে আগত শিশুদের দেখে সবচেয়ে ভালো লাগল, দু চোখ ভর্তি নিখাদ বিস্ময় নিয়ে গিলছে তারা মধ্যযুগীয় বিশ্ব।

সত্যিকারের বরেন্দ্রভূমিতে - শেষ

অনেক অনেক ফুলের ছড়াছড়ি, তার মাঝে একটা দেখে আরণ্যকের লাইন গুলো মাথায় এল- বেগুনি রঙের জংলী ফুলগুলিই আমার কানে শুনাইয়া দিল বসন্তের আগমনবাণী

আলোচিত পোস্ট


বজ্রনিনাদী জলরাশির ইতিকথা

বজ্রনিনাদী জলরাশির ইতিকথা

শনিবার, জানুয়ারী ১৯, ২০১৯

লোহিত খাঁড়ি আর কৃষ্ণ নদীর গল্প (পর্ব-২)

লোহিত খাঁড়ি আর কৃষ্ণ নদীর গল্প (পর্ব-২)

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৯

জিপলাইনে দুহাজার ফিট

জিপলাইনে দুহাজার ফিট

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৩, ২০১৯