হিমালয় অধ্যুষিত দক্ষিণ এশিয়ার দেশ নেপাল। দেশটি তিন দিক দিয়ে ভারত বেষ্টিত। তবে উত্তরে আছে গণচীন। ইতিহাস ঐতিহ্য সমৃদ্ধ দেশটির শতকরা ৮০ শতাংশ মানুষই হিন্দু ধর্ম‍াবলম্বী। আয়তনে বাংলাদেশের কিছু কম হলেও আর্দ্র আবহাওয়া, তরাই থেকে শুরু করে সুবিশাল হিমালয় পর্বত দেশি-বিদেশি পর্যটকদের নজড় কাড়ে। পৃথিবীর সর্বোচ্চ ১০ পর্বতের মধ্যে ৮টি-ই নেপাল-চীনে সীমান্তে অবস্থিত। রয়েছে সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট।

প্রাকৃতিক লীলা বেষ্টিত দেশটি একই অঞ্চল ও যাতায়াত ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় অনেক বাংলাদেশি-ই সুযোগ পেলে ঘুরে ‍আসেন নেপাল।

এজন্য আপনাকে ঢাকাস্থ নেপাল দূতাবাসে ভিসা প্রসেস করে নিতে পারেন। এখানে শুধু ভিজিট ভিসা দেওয়া হয়। তবে প্লেনে গেলে ওই দেশের বিমানবন্দর থেকেই আপনাকে অ্যারাইভাল ভিসা দেওয়া হবে।

ভিসা প্রসেসিং

ভিসা আবেদনপত্র বিনামূল্যে প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত নেপাল দূতাবাস থেকে সংগ্রহ করা যায়।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংযুক্ত করে আগ্রহীরা রোরবার থেকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত জমা দিতে পারবেন।

বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তা, কূটনৈতিক সংস্থার কর্মকর্তা/কর্মচারী এবং বৈদেশিক পর্যটকরা সরাসরি ভিসা পেয়ে থাকেন।

সার্কভুক্ত দেশের নাগরিকদের জন্য একই বছরে প্রথম ভিসার জন্য কোনো ফি দিতে হবে না। একই বছরে দ্বিতীয় ভিসার জন্য ফি দিতে হবে। তবে অন্যান্য দেশের নাগরিকদের নির্দিষ্ট ভিসা ফি দিতে হবে।

সাধারণ পর্যটকদের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  সদ্যতোলা পাসপোর্ট সাইজের এক কপি ছবি এবং পাসপোর্টের ফটোকপি।

ব্যবসায়িক পাসপোর্টধারীদের জন্য কাগজপত্র

   ট্রেড লাইসেন্সের ইংরেজি অনুবাদ এবং নোটারিকৃত কপির মূলকপি।

   বাংলা ট্রেড লাইসেন্সের ফটোকপি।

   বিজনেস কার্ড (বাংলা ফটোকপি সঙ্গে আনতে হবে)।

চাকরিজীবী পাসপোর্টধারীদের জন্য

   অফিসিয়াল প্রত্যয়নপত্রের ইংরেজি অনুবাদ কপির মূলকপি।

   জাতীয় পরিচয়পত্র।

ছাত্র পাসপোর্টধারীদের জন্য

    বৈধ পরিচয়পত্রের এবং সর্বশেষ প্রাপ্তসনদের সত্যায়িত কপি অথবা কলেজ/ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্যয়নপত্র / সুপারিশ পত্র।

গ্রুপ ভিসার কাগজপত্র

   বিশ্ববিদ্যালয়/ কলেজ/ অফিসের লেটার প্যাডে পাসপোর্ট নম্বরসহ নামের তালিকা লিখতে হবে। লেটার প্যাডে বিভাগীয় প্রধানের অফিসিয়াল সিল স্বাক্ষরসহ সুপারিশ থাকতে হবে।

আবেদন পত্র জমাদানের পূর্বে লেটারটি এই নম্বরে ০০৮৮-০২-৮৮২৬৪০১ ফ্যাক্স করতে হবে।

ভিসা ফি

সার্ক-ভুক্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশীদের নেপাল যেতে ভিসা আবেদন করতে কোন ভিসা ফি দিতে হয় না। তবে একই বছর দ্বিতীয়বার নেপাল যেতে চাইলে ভিসা ফি দিতে হবে। ১লা জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়কালকে এক বছর বিবেচনা করে নেপাল দূতাবাস। তবে বাংলাদেশ থেকে সার্ক-ভুক্ত দেশের বাইরে কোন নাগরিক নেপালের ভিসার জন্য আবেদন করলে ভিসা ফি দিতে হবে।

১৫ দিনের মাল্টিপল ভিসার জন্য ২ হাজার ২০০ টাকা, ৩০ দিনের মাল্টিপল ভিসার জন্য ৩ হাজার ৫০০ এবং ৯০ দিনের মাল্টিপল ভিসার জন্য ৯ হাজার টাকা ফি দিতে হবে।

টেলিফোনে কোনো ভিসা তথ্য দেওয়া হয় না। অন্যান্য তথ্যের জন্য প্রতি রোববার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যে ভিসার ডেস্কে যোগাযোগ করে বিস্তারিত জানা যাবে। দূতাবাসের শুক্রবার ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি থাকে।

সূত্র: নেপাল দূতাবাসের ওয়েবসাইট ও ইন্টারনেট থেকে।

নেপাল দূতাবাসের ঠিকানা

জাতিসংঘ সড়ক, ডিপ্লোম্যাটিক জোন, বারিধারা, ঢাকা।

ফোন- ৯৮৯২৪৯০, ৯৮৯২৫৬৮, ফ্যাক্স- (০০-৮৮-০২) ৮৮২৬৪০১

ই-মেইল- eondhaka@dhaka.net, ওয়েবসাইট: www.nepembassy-dhaka.org