ভারতের মেঘালয় রাজ্যের চেরাপুঞ্জি তে অবস্থিত এই জলপ্রপাতটির নাম টা আমার অজানা। মেঘালয়ের একটা ইকো পার্ক থেকে দেখা যায় এই সুউচ্চ জলপ্রপাত টি। পৃথিবীর উচু উচু জলপ্রপাত গুলোর মধ্যে এটির অবস্থান প্রায় প্রথম দিকেই থাকার কথা। এখানে জলপ্রপাতটির মাত্র অর্ধেক অংশ দেখা যাচ্ছে। নীচের দিকে যেই রাস্তাটা দেখা যাচ্ছে সেখানে একটি গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। ভাল করে খেয়াল করলে দেখতে পাবেন। গাড়িটির সাপেক্ষে জলপ্রপাতটির উচ্চতা সম্পর্কে কিছুটা আন্দাজ করা যায়। আমরা আসলে এর ভয়ংকর রুপ দেখিনি। ভরা বর্ষায় যদি আবার কখনো যাই তাহলে এর পূর্ন রুপ দেখতে পাব। আশা করা যায় মেঘালয়ে ননস্টপ আরো কিছু ট্যুর দিতে পারব। 

রুট- ঢাকা- সিলেট - তামাবিল বর্ডার - ডাউকি রোড- শিলং- চেরাপুঞ্জি 

খরচ- ঢাকা টু সিলেট - নন এসি ৪৭০ টাকা। সিলেট টু তামাবিল বর্ডার ৫৫ টাকা, ট্রাভেল ট্যাক্স ৫০০, সেটা ট্যুরের আওতাভুক্ত না ধরলেই ভাল। ইমিগ্রেশন শেষে ডাউকি যেতে ১০ রুপি। ডাউকি থেকে টাটা সুমু তে শিলং ১২০ রুপি অথবা ট্যাক্সি রিজার্ভ ৮০০/ ১০০০ টাকা। শিলং থেকে সকাল ৮ টায় গভমেন্ট ট্যুরিস্ট বাসে করে ৮ টি ট্যুরিস্ট স্পট - ৩৫০ রুপি।৩৫০ টাকার এই প্যাকেজেই পাবেন এই অপরুপ জলপ্রপাত টি।

পাসপোর্ট এবং ভিসা দুটিই লাগবে