‘সুরঞ্জনা তোমার হৃদয় আজ ঘাস, বাতাসের ওপারে বাতাস, আকাশের ওপারে আকাশ।’- জীবনানন্দের এই পঙতি টি উপলব্ধি করতে চান? তাহলে আর কোনো কথা নয়, কোনো প্রশ্ন নয়, কোনো কিন্তু নয়....সোজা চলে যান মুন্নার। চারিদিকে দৃষ্টিকে বিশুদ্ধ করে দেয়ার মতো অবারিত সবুজের ঢেউ আর শরীরকে স্বস্তি দেয়া না-গরম না-ঠাণ্ডা আবহাওয়া, সাথে রয়েছে পাহাড়, ঝর্ণা আর লেকের স্বচ্ছ জল। আর কী চাই?

#৩য়_দিন: যেখানে কেরালার রাজধানী কোচি সর্বদা উঞ্চতায় ফুটছে সেখানে মুন্নারের আবহাওয়া সত্যিই ‘অসাম শালা’। বলা হয়ে থাকে, যদি কেউ কেরালা ঘুরতে যান তবে তাকে অবশ্যই মুন্নারের জন্য কমপক্ষে ২ দিন রাখতে হবে, কারণ মুন্নারে দেখার ও অনুভবের এত এত আয়োজন প্রকৃতি সাজিয়ে রেখেছে। কেরালাবাসীরা কেরালাকে বলে ‘ইশ্বরের নিজের দেশ’। তাদের মতে, এখানে ঈশ্বর সবকিছু নিজের হাতে ঢেলে সাজিয়েছেন। তো যাই হোক, এ কথার সত্যটা যাচাই-বাছাইয়ের ঝামেলায় আর যাচ্ছি না, যাচ্ছি মুন্নারের দিনলিপিতে...

ফোর্ট কোচিতে আমরা যে হোমস্টেতে ছিলাম সেই বাসার মালিক সত্যিই অমায়িক, ভদ্র। আমাদেরকে তো নানা তথ্য-পরামর্শ দিয়ে সাহায্য করেছেন, এমনকি সকালে আমাদেরকে তার নিজের গাড়িতে করে স্টেশনে ড্রপ করে দিয়ে নির্দিষ্ট গাড়িতে তুলে দিয়ে তারপর বিদায় হয়েছিলেন। এই ভ্রমণলিপিতে যদি তার কথা না বলি তাহলে সত্যি অকৃতজ্ঞতার পরিচয় দেয়া হবে (অন্তত নিজের কাছে নিজে)। গাড়ি ছাড়ার পর যাচ্ছি তো যাচ্ছি....

একটা কথা বলে রাখি, আমরা যখন ট্যুর প্লানটা করি তখন ঠিক করেছিলাম মুন্নারে দুইদিন নয়, একদিনই থাকবো; কিন্তু একটু অন্যভাবে। অর্থাৎ ১ম দিন দুপুর থেকে শুরু করে রাত এবং ২য় দিন ভোর থেকে ২/৩টা পর্যন্ত ঘুরে আবার কোচি ব্যাক করবো। সেভাবেই প্রস্তুতি নিলাম।

মুন্নারের যখন পৌঁছলাম তখন সকাল ১০:১৫টার মতো হবে। আসার পথে বেশ কয়েকটা ঝর্ণা গাড়ি থেকে চলন্ত অবস্থায় দেখলাম (লাইনের গাড়ি হলে থামবে না)। তারপর ১১:০০টার দিকে খাওয়া (কারণ ১২টার আগে আমাদের খাওয়ার পাঠ চুকাতে হয়) খেলাম। তারপর একটা টুকটুক নিলাম বাকি দিনটা এবং পরের দিন গাড়িতে না উঠা পর্যন্ত। ভাড়া ৮০০-র মতো ঠিক হলো। সেই টুকটুকওয়ালাই আমাদের গাইড হলো।

#১ম_দিন_কি_কি_দেখলাম: দুঃখিত, নামগুলো মনে করতে পারছি না। তবে এটুকু বলতে পারি ঘুরাটা স্বার্থক হয়েছিল। কারণ টুকটুকের ড্রাইভার আমাদেরকে একটা কাগজ দিয়েছিল যেখান থেকে আমরাই সিলেকশন করেছিলাম গন্তব্যগুলো। তারপর তিনি ওগুলো দেখে আজকে কোনগুলোতে নিয়ে যাবে এবং পরের দিন কোনগুলোতে নিয়ে যাবে তা বলে দিয়েছিল।

#পরামর্শ: মুন্নার গেলে দেখার কি কি আছে তা তো নেট থেকে জেনে নেবেনই, সাথে ট্যুরিস্ট ম্যাপটাও দেখবেন। তাহলে কোনদিক থেকে আরম্ভ করবেন তার একটা ধারণা পাবেন।