সুইমিং পুল জিনিসটা আজকাল কারও অজানা নয়। শহরের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে এই জিনিস, আর টিভিতে ও মুভিতে আমরা প্রায়ই দেখি সুইমিং পুল এর দৃশ্য। চকচকে নীল পরিষ্কার পানি যেন হাত ছানি দিয়ে ডাকে। এবারে ভাবুন, এরকম একটা সুইমিং পুল যদি পাওয়া যায় যেটা এরকমই কিংবা আরও বেশি সুন্দর এবং সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক?

এর সাথে আরও মজা যুক্ত হবে যখন আপনি জানতে পারবেন যে এটা আসলে একটা আগ্নেয়গিরির উপরে অবস্থিত।

সামোয়ার পাকৃতিক সৌন্দর্য অসাধারণ। ছবি: সংগৃহীত।সামোয়ার পাকৃতিক সৌন্দর্য অসাধারণ। ছবি: সংগৃহীত।

পলিনেশিয়ার একটি ছোট্ট দেশ হল সামোয়া। সবুজ-নীল সাগর, নীল আকাশ আর সাদা সমুদ্র সৈকতের দেশ এটি। এরই ভেতরে একটি প্রাচীন আগ্নেয়গিরির ভেতরে দেখা যায় এই প্রাকৃতিক পুকুরটি। এর পরে সেটা ক্রমেই জনপ্রিয় হয়ে উঠতে থাকে সবার মাঝে।

গুহার ভেতর থেকে বাইরের দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত।গুহার ভেতর থেকে বাইরের দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত।

টু সুয়া ওপেন ট্রেঞ্চ পুল নামের এই প্রাকৃতিক সুইমিং পুলটির সাথেই রয়েছে একটি গুহা আর আপনি চাইলে সাঁতার কেটে সেই গুহায় চলেও যেতে পারবেন। ভেতরে গা ছমছমে পরিবেশে চুপটি করে পানিতে ভেসে থাকার মজার সাথে তুলনা হতে পারে না আর কিছুই।

এখানে গুহার ভেতরে স্কুবা ডাইভিংও করা যায়, তবে সেটা অভিজ্ঞদের জন্য রেখে দেয়াই ভাল। আপনি চাইলে একদিকের উঁচু দেয়াল থেকে লাফ দিতে পারেন নিচের পানিতে, বন্ধুদের দেখাতে পারেন বিভিন্ন কসরত।

এই প্রাকৃতিক পুলটির পানি একদম স্বচ্ছ, যেন কাকচক্ষু জল।

সুইমিং পুল থেকে আকাশ। ছবি: সংগৃহীত।সুইমিং পুল থেকে আকাশ। ছবি: সংগৃহীত।

সামোয়া দেশটি নিজেও অনেক সুন্দর একটি দেশ। ঘুরে, বিশ্রাম ও অবকাশ যাপন করার অনেক সুযোগ রয়েছে সেখানে। টুরিস্টদের ভিড়ে যেখানে পৃথিবীর জনপ্রিয় সব জায়গা ভিড়াক্রান্ত হয়ে গেছে, সেরকমটা এখনও হয়নি এখানে। এখনও অনেক প্রাকৃতিক ও সুন্দর রয়েছে জায়গাটি।