বাংলার পথে

ঈসা খাঁ’র স্মৃতি বিজড়িত জঙ্গলবাড়িতে -২

দুর্গটি সংস্কার করে তিনি এর তিন দিকে পরিখা খনন করে নরসুন্দা নদীর সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে জঙ্গলবাড়িকে একটি গোলাকার দ্বীপের মত করে গড়ে তোলেন

ঈসা খাঁ’র স্মৃতি বিজড়িত জঙ্গলবাড়িতে -১

ঈসা খানের জীবদ্দশায় মুঘল সম্রাট আকবর পূর্ব বাংলার ভাটি অঞ্চলে তাঁর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে পারেন নি। এ সময়ে ঈসা খান ভাটির বিশাল অংশে নিজের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে সে অঞ্চলকে একটি স্বাধীন রাজ্যে পরিণত করেন

ভাষাসৈনিক ডা. সাঈদ হায়দারের স্মৃতিচারণায় ১৯৫২র ফেব্রুয়ারী

বর্তমান শহীদ মিনারের নকশা নিয়ে হায়দার দাদু খুব একটা সন্তুষ্ট নন, কারণ মূল নকশার অনেক কিছুই এখনো অসম্পূর্ণ থেকে গেছে।

স্বর্ণদ্বীপে অভিযান

পূর্ণিমার চাঁদটারে এতো সুন্দর লাগছে কেনো বুঝলাম না...চন্দ্রগ্রস্ত বলে একটা ব্যাপার আছে...আমরা তখন খুব সম্ভবত এটাতে আক্রান্ত ছিলাম...সবকিছু কেমন নেশা নেশা টাইপ! 

বাংলার প্রথম মহিলা কবি চন্দ্রাবতীর মন্দিরে

বাড়িটি ছিল তৎকালীন জমিদার নীলকণ্ঠ রায়ের। তাঁর নামেই পাশের নীলগঞ্জ বাজারটির নামকরণ করা হয়েছে। এই নীলগঞ্জ-ই জনপ্রিয় উপন্যাসিক হুমায়ুন আহমেদের নাটকের ‘সুখি নীলগঞ্জ’ গ্রাম।

চারশ বছরের পুরনো মাছমেলায়

বছরের মাত্র ১দিন বসলেও এই মেলাতে সারা দেশ তো বটেই অন্য দেশ থেকেও মানুষ আসে, নাম মাছমেলা বা জামাই মেলা, কারণ জামাইরা আসে সত্যিকারের বৃহৎ মৎস্যের খোঁজে!

মঙ্গলবাড়ির প্রাচীন মন্দির এবং গরুড় স্তম্ভ

মঙ্গলবাড়ি শিবমন্দির থেকে প্রায় ১৫০ মিটার দক্ষিণে অপেক্ষাকৃত নিচু স্থানে গরুড় স্তম্ভ নামের একটি উল্লেখযোগ্য প্রাচীন কীর্তি আছে। এটি সম্ভবত একটি মজে যাওয়া বিল, মানুষের তৈরি কোন জলাশয় নয়

বর্ষীজোড়া ইকো পার্ক - মৌলভীবাজার

কাজের ফাঁকে ফাঁকে পা ভিজিয়েছি মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে; ভেংচি কেটেছি লাউয়াছড়ার অরণ্যের বানরগুলোকে; সাতরঙা চা পান করেছি শ্রীমঙ্গলের নীলকণ্ঠ চায়ের দোকানে; আর বাইকের পিছনে বসে মাইলের পর পাড়ি দিয়েছি চা বাগানের ঢেউ খেলানো সবুজ কার্পেট।

দিবর দীঘি এবং তার রহস্যে মোড়া স্তম্ভ

স্তম্ভটি সম্পূর্ণ গ্রানাইট পাথরে নির্মিত, এবং অবশ্যই নির্মাণের আগে আদি অবস্থায় এর ওজন বর্তমানের চেয়ে অনেক বেশী ছিল

সিলেট ভ্রমণ

জাফলঙ দেখা শেষ হলে আমরা ফেরার পথে নামলাম লালাখাল। এখানকার ঘনসবুজ পানিতে কেমন যেন একটা অপার্থব সৌন্দর্য। লালাখাল বেশি ঘুরে দেখতে পারলয়াম না সময়ের অভাবে, গভীরে যাইনি

নিঝুম দ্বীপের গল্প (শেষ পর্ব)

কি সুনসান এ জায়গা...শত কোলাহল থেকে অনেক মাইল যেনো দূরে...অনেক দূরে সমুদ্র আবছা দেখা যাচ্ছে... আমরা তখন আজগুবি সব আলাপে! এতো পরিস্কার আকাশ অনেকবছর দেখি না!

নারীবিহীন সোনার চরে জলদাসদের অস্থায়ী আস্তানা (শেষ কিস্তি)

একাকী ছৈলা ফল ভেসে এসেছে সৈকতে, হয়ত একদিন এই ফলের বীজই বিশাল গাছে পরিণত হবে, সোনার চর আরেকটু স্থায়ী হবে বঙ্গোপসাগরের বুকে, আসবে জলদাসরা আবহমান কাল ধরে চলে আসা জীবনধারা মেনে।

নারীবিহীন সোনার চরে জলদাসদের অস্থায়ী আস্তানা (১ম কিস্তি)

বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে উঠেছে পাতলা ছিপছিপে এক চর, একেবারে নবীন নয় বালিমাটির এই ভূখণ্ড, লম্বা লম্বা সবুজ গাছ জানান দিচ্ছে কত চন্দ্রভুক অমাবস্যা এসে চলে গেছে মহাকালের বুকে তার আবির্ভাবের পরে

মথুরাপুরের রহস্যময় দেউল

এই দেউল একান্ত ভাবে বাংলার নিজস্ব- বাংলার পুরুষোচিত কৃষ্টির পরিচায়ক। বাংলার বাহির হইতে কোণ প্রভাবই ইহাকে স্পর্শ করে নাই।

আলোচিত পোস্ট


আজকের ছবি-২৩-০৪-১৮

আজকের ছবি-২৩-০৪-১৮

সোমবার, এপ্রিল ২৩, ২০১৮