১৪২৪ বংগাব্দের শুরুর দিন, সূর্যোদয়ের সাথে সাথে টাংগাইলের অর্জুনার বটতলা মুখোরিত হয়ে ওঠে ভেপু বাশির শব্দে আর বহুবর্ণে। বাঙালীর বর্ষবরণের মেলার চিরায়ত যে বর্ণনা আমরা বইয়ে পড়ে  এসেছি,মেলাটা ঠিক তেমনই ছিল, যেন বইয়ের পাতা থেকেই উঠে এসেছে এই মেলা। 

মেলায় বাজে ঢাকমেলায় বাজে ঢাক

চিন্তাটা আরো আগের ছিলো, কিন্তু গতবছর থেকেই শুরু হয়েছে এই মেলা টা। চিন্তাটা এরকম ছিল শহর ও গ্রামের মানুষ মিলে আয়োজন করবে গ্রামীণ পরিবেশে একটি বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠান।গ্রামের বৈশাখী মেলাগুলো এখন অনেকটা নাগরিক ধাচের হয়ে গেছে ।  আয়োজক রা সেই ধাচ থেকে বেড়িয়ে আসতে চেয়েছিলেন। 

কল্পনাটাই এমন ছিলো, কোন একটা প্রাচীন বৃক্ষ বা নদীর ধারে বসবে মেলা। সেখানে গ্রামের লোকেরা নিয়ে আসবে নানান পণ্যের দোকান। থাকবে মাটির হাড়ি পাতিল, বাঁশের তৈরি আসবাব, , কামার বাড়ির নির্মিত বটি, কাচি, ছুরি, বাচ্চা ছেলে-মেয়ে দের খেলনা, বাঁশি, ঘুড়ি,  বসবে চৈতালী ফসলের হাট,  সেখানে কৃষাণ বধুরা যেমন আসবে তাদের সারা বছরের চাহিদা মতো পণ্য কিনে নিতে একই সাথে শহরের ললনারাও আসবে তাদের প্রয়োজন পড়ে এমন পন্য কিনে নিতে।

বলী খেলাবলী খেলা

সেই কল্পনা বাস্তবায়ন হয়েছে। গত বছর মেলা হয়েছে সম্পূর্ণ গ্রামীণ আংগিকে। এবারও আয়োজন করা হয়েছে অর্জুনার বটতলায় বর্ষবরণ এর, বৈশাখী মেলার।

 এই মেলাতে থাকবে না কোন তথা কথিত স্টল, শব্দ দূষণ করে এমন সাউন্ড সিস্টেম। থাকবে গ্রামীণ নানা খেলাধুলা , থাকবে জারি, ধুয়া আর বেহুলার পালা। 
গতবারের মতো এবারও মেলায় থাকবে পাল ও কুমার বাড়ির জিনিসপত্র , ঘোষ বাড়ির দই মিষ্টি, মাছ ধরার বিভিন্ন রকমের জাল, থাকছে লাটিন খেলা, কাবাডি, কাছি টানাটানি সন্ধ্যায় উড়বে ফানুস আর সারা দিন থাকছে লাঠিয়ালদের নানা শারিরীক কসরত।

মেলায় স্থানীয় কুমোর দের তৈরি জিনিসপত্র মেলায় স্থানীয় কুমোর দের তৈরি জিনিসপত্র

এছাড়া কৃষকের ঘরে ঘরে উঠে গেছে বিভিন্ন শস্য। যেমন কলাই, বাদাম, ভুট্টা সজ, মরিচ । সে সবেরও পসরা বসবে এবার। যারা ক্রয় করতে চান তাদের একটু আগাম প্রস্তুতি নিয়ে আসতে হবে মেলায় ।

গতবছর এর মত এবারও মেলাটির আয়োজন করছেন 'গ্রামে ঘুরি' 

থাকবে মঙ্গল শোভাযাত্রা, বেহুলার ভাসান, লাঠি বাড়ি খেলা, ফানুস উড়ানো, গ্রামীণ খেলাধুলা

থাকবে স্থানীয় কামাড় , কুমার বাড়িতে নির্মিত বিভিন্ন গৃহস্থালী জিনিসপত্র, ঘোষ বাড়ির দই মিষ্টি, বাশেঁর ও পাটের তৈরি দৃষ্টিনন্দন জিনিসপত্রের দোকান।

মেলায় একজন ক্ষুদে দর্শনার্থী মেলায় একজন ক্ষুদে দর্শনার্থী

চাইলে রাতে তাবু করে থাকতেও পারেন। সেক্ষেত্রে অবশ্যই সংগে নিজের তাবু ও অন্যান্য ক্যাম্পিং সরঞ্জাম রাখবেন। ক্যাম্প করতে পারবেন অর্জুনার  গ্রাম পাঠাগার আন্দোলনের স্বপ্নের কলেজে।

সম্পূর্ণ গ্রামীণ পরিবেশে যারা পহেলা বৈশাখ উদযাপন করতে চান তাদের এই মেলা পছন্দ হবেই, তাই নাগরিক কোলাহল থেকে একটু দূরে সত্যিকারের  বৈশাখের স্বাদ পেতে ঘুরে আসতে পারেন এই মেলায়। 

ঠিকানা-
টাংগাইল, ভুয়াপুর, অর্জুনা।

(ছবি- গ্রামে ঘুরি)