ঈদের ছুটিতে কেউ যাবেন গ্রামের বাড়িতে। কেউবা দেশের বাড়ি। অনেকেই থেকে যাবেন ঢাকায়। যারা ঢাকায় থাকবেন তারা পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন

কাছেপিঠেই। ঘাবড়াবার কিছু নেই, দিনে গিয়ে দিনেই ফেরত আসতে পারবেন। আর সেখানে গেলেই পাবেন নির্মল বাতাস, সবুজ প্রকৃতির একটু ছোঁয়া। চমৎকার সময়ের জন্য বেছে নিতে পারেন নিচের যে কোনো একটা গন্তব্যকে।

পদ্মারিসোর্ট

ঢাকা থেকে ৪০ কি.মি. দূরে মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং নামক স্থানে পদ্মা নদীতে চড়ের উপর এই রিসোর্টটি অবস্থিত। পদ্মা নদীর পারে অবস্থিত বলেও জায়গাটি অতি মনোরম আর সুন্দর। বর্ষা ঋতুর সময় গেলে আপনার বেশি ভালো লাগবে।

পদ্মারিসোর্টপদ্মারিসোর্ট

যেভাবে যাবেন

ঢাকার গুলিস্তান, সায়েদাবাদ ও যাত্রাবাড়ী থেকে এই রুটে বিভিন্ন পরিবহনের অসংখ্য বাস প্রতি ১০/১৫ মিনিট পর পর চলাচল করে। গুলিস্তান সুন্দরবন স্কোয়ার মার্কেটের পূর্ব পাশ এবং যাত্রাবাড়ী গোলচত্ত্বরের পূর্ব-দক্ষিণ দিক থেকে ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-লোহজং এর বাস ছেড়ে যায়। ঢাকা থেকে সড়কপথে এই জেলার ভাড়া ৬০ টাকা। মাওয়া ফেরিঘাট থেকে রিসোর্টে যাওয়ার জন্য রিসোর্টের নিজস্ব স্পিডবোট রয়েছে।

বেলাই বিল

গাজীপুরের বেলাইবিল মনোরম একটি জায়গা। চেলাই নদীর সাথেই বেলাই বিল।এখানে ইঞ্জিনচালিত আর ডিঙ্গি নৌকা দুটোই পাওয়া যায়। যেটাতে ভালো লাগে উঠে পড়ুন। সারাদিনের জন্য ভাড়া করে নিতে পারেন এবং ইঞ্জিনচালিত নৌকা নিলে নিজেরাই চালিয়ে ঘুরতে পারেন।

বিকেলে এই বিলের চারপাশে অপূর্ব দৃশ্য তৈরি হয়, সঙ্গে শাপলার ছড়াছড়ি। শুধু চারিদিক তাকিয়ে থাকবেন। আবার কিছুক্ষণ পরপরই বাতাসের ঝাপটা লাগবে গায়ে। বেশি সময় নিয়ে গেলে অবশ্যই খাবার নিয়ে যাবেন।

যেভাবে যাবেন

গাজীপুর সদর পর্যন্ত যাওয়ার পর, সেখান নেমে টেম্পুতে কানাইয়া বাজার যাবেন। ভাড়া নিবে ১০ টাকা করে। রিকশাতেও যেতে পারেন। কানাইয়া বাজারে নেমেই সামনে ব্রিজ আছে, ব্রিজ পার হয়েই নদীতে বাধা নৌকা ঠিক করে উঠে পড়ুন।

ঈদের ছুটিতে ঢাকার অদূরে বেড়াতে যাবেন? (২য় কিস্তি)

ঈদের ছুটিতে ঢাকার অদূরে বেড়াতে যাবেন?