আলমডাঙ্গা রেল স্টেশনের অদূরে লাল ব্রিজের কাছে এই বধ্যভূমিটি অবস্থিত। প্রতিটি বধ্যভূমি মুক্তিযুদ্ধের এক করুণ ইতিহাস কে তুলে ধরে। মুক্তিযুদ্ধের সময় এখানে এনে হত্যা করা হত মুক্তিকামী মানুষদের। মানুষকে ধরে এনে নির্বিচারে হত্যার আগে তাদের কে দিয়েই গর্ত করা হত। অনেকের হয়তো জানা নেই মুক্তিযুদ্ধকালীন সময় চুয়াডাঙ্গা জেলাকে বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী ঘোষণা করা হয়। এর ফলে এখানে বেড়ে যায় হানাদার বাহিনীর আনাগোনা।

আলমডাঙ্গা রেল স্টেশনের পাশে লাল ব্রীজের কাছে চেক পোস্ট বসায় পাক বাহিনী। আপ ও ডাউনে চলাচলকারী ট্রেন থামিয়ে নারী পুরুষদের জোর করে ধরে নিয়ে যাওয়া হতো। পরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের হলুদ খালাসি ঘরে টর্চার সেলে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন চালাত। বধ্যভূমি স্মৃতি সৌধের কাছে টর্চার সেলের সেই হলুদ ঘরটি এখন রেখে দেওয়া হয়েছে স্মৃতি হিসাবে। সময় নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন আলমডাঙ্গা বধ্যভূমি। দেশ কে জানি, দেশের ইতিহাস কে তুলে ধরি নতুন প্রজন্মের কাছে।