প্রকৃতি

সবচেয়ে দ্রুত ডানা ঝাপটায় কোন পাখি?

মুহূর্তের মাঝে এত বিপুল গতিতে ডানা সঞ্চালনের মূল রহস্য লুকিয়ে আছে তাদের ডানার গঠন, কাঁধের জোড়া এবং অতি শক্তিশালী পেশীর মাঝে

বিশ্বখ্যাত কাজিরাঙ্গা ন্যাশনাল পার্ক দেখা -শেষ

সবচেয়ে বেশি খুশী হলাম বিশালকায় এক জোড়া রাজধনেশ দেখে, আকাশের রাজা অসাধারণ পাখিটি আমাদের দেশে আজ বিলুপ্তির মুখোমুখি,

বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘজীবি পাখি কোনটি ?

সদ্য ডিম ফুটে বের হওয়া রাজকীয় অ্যালবাট্রস ছানার এই কঠিন পৃথিবীতে প্রথম বছর অতিবাহিত করার সম্ভাবনা মাত্র ৩০ % কিন্তু সেই বন্ধুর সময়টুকু পার করতে পারলেই আমাদের গ্রহের যে কোন বুনো পাখির চেয়ে তার জীবনের মেয়াদ অনেক বেশী

সবচেয়ে বেশী উচ্চতায় ভ্রমণ করে পরিযাজন করে কোন পাখি?

প্রতি শীতে তাদের অতিক্রম্য দূরত্ব মাত্র ৭০০- ১০০০ কিলোমিটার, এবং বাতাসের যথেষ্ট সহযোগিতা পেলে এই দূরত্ব ১ দিনেও অতিক্রম করা সম্ভব।

কাজীরাঙ্গায় গণ্ডারের মুখোমুখি

ব্রহ্মপুত্র পারে অবস্থিত কাজিরাঙ্গা সারা বিশ্বে বিখ্যাত মূলত এশিয়ান এক শৃঙ্গ গণ্ডারের জন্য, এই সংরক্ষিত অঞ্চলে আছে প্রায় আড়াই হাজার এক শৃঙ্গ গণ্ডার।

পিটিয়ে মারা মেছো বাঘ এবং আমাদের ভবিষ্যৎ

সুন্দরবনের এক গ্রামে ঝড়ের সময় এক তরুণ দিকভ্রান্ত বাঘ চলে আসে, রান্না ঘরের উষ্ণতার সন্ধান পেয়ে সে চুলার পাশে গুটিসুটি মেরে ঘুমিয়ে পড়েছিল! যখন ঘুম ভাঙল বড় বেড়ালটির সে ততক্ষণে হিংস্র মানুষের ভিড়ে বাঘবন্দী হয়ে গেছে

যে ১১টি পাখির নামের সাথে বাংলাদেশ জড়িত - ৩য় পর্ব

সচরাচর এরা মৃদু স্বরে পুনঃপুনঃ ডাকে চিট চিট এবং গলা ছেড়ে কোমল কণ্ঠে গায় – সি সি সিসিক সিসিক সিক সিক। ছেলেপাখি গান গায়, মাথা নত করে এবং এর হলুদ ঠোঁট এবং চাঁদি দেখায়।

যে ১১টি পাখির নামের সাথে বাংলাদেশ জড়িত - ২য় পর্ব

দৃঢ় ভাবে ডানা নেড়ে উড়ে চলে এবং মাছারাঙ্গার মতই শূন্যে মুহূর্তের জন্য স্থির ভেসে থাকতে পারে, প্রায়ই গভীর সাগরে উড়ে যায়, জলে ঝাপ দেবার আগে সচরাচর ডাকে- ক্রীক- ক্রীক এবং ভয় পেলে উচ্চ শব্দে কিচমিচ করে ডাকে।

বিশ্বের রোমান্টিকতম হ্রদ, লেক ব্লেড

দিগন্তে তুষার ছাওয়া আল্পস, চারিদিকে পান্নাসবুজ বন, নীলার মত স্বচ্ছ নীলাভ সেই হ্রদের জল, যার মাঝখানে আছে রূপকথার এক দ্বীপ! সেই দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক দ্বীপ।

আফ্রিকার বুনো প্রান্তরে

যতই ঘাস খাওয়া গোবেচারা মনে হোক, এমন এক পাল ওয়াইল্ডবিস্ট তেড়ে এলে আমাদের পলকা গাড়ী বাদামের খোসার মত কুড়মুড়িয়ে গুড়িয়ে যাবে পথের লাল ধুলোয়।

পরিত্যক্ত সোয়ালো ছানার উড়ে যাওয়া

Common Swallow, Swallowর বাংলা আবাবিল হলেও এই পাখিটি বাংলাদেশে পাওয়া যায় না বিধায় এই লেখাতে সোয়ালো বলেই উল্লেখ করলাম

যে ১১টি পাখির নামের সাথে বাংলাদেশ জড়িত - ১ম পর্ব

যে ১১টি পাখির নামের সাথে বাংলাদেশ জড়িত

কোন পাখির শ্রবণশক্তি সবচেয়ে শক্তিশালী ?

তাদের সবচেয়ে বড় শারীরিক সক্ষমতা আসলে অতি নিখুঁত শ্রবণশক্তি! উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় আমাদের চিরচেনা লক্ষী পেঁচার ( Tyto alba) কথা, তারা ঘুটঘুটে আঁধারেও দৃষ্টিশক্তির বিন্দুমাত্র সাহায্য না নিয়ে শতভাগ সাফল্য নিয়ে অতি দ্রুতগামী শিকার ধরতে সক্ষম।

দেশান্তরী প্রজাপতির ডানায় সারসের দেশে

হাইওয়ে ধরে যাবার পথে একবাসাতে তিনটি ধলা মাণিকজোড়ের ছানা দেখে কৌতূহল ভরে দাঁড়ানো হল, ভাগ্যিস দাঁড়িয়েছিলাম!

বন আর নদী

যতটুকু চোখ যায় দেখি শুধু বৃক্ষ। প্রাচীণ। নবীন। দীর্ঘকায়। পৃথুল। হলুদ পথটা হারিয়ে গেছে কোথায় যেন,তার জায়গায় দেখি এবার শুয়ে আছে নৃত্যরতা রমনীর মত দেখতে একটা নদী। এ নদীর নাম সাসান্দ্রা

আলোচিত পোস্ট