প্রকৃতি

পরিত্যক্ত সোয়ালো ছানার উড়ে যাওয়া

Common Swallow, Swallowর বাংলা আবাবিল হলেও এই পাখিটি বাংলাদেশে পাওয়া যায় না বিধায় এই লেখাতে সোয়ালো বলেই উল্লেখ করলাম

যে ১১টি পাখির নামের সাথে বাংলাদেশ জড়িত - ১ম পর্ব

যে ১১টি পাখির নামের সাথে বাংলাদেশ জড়িত

কোন পাখির শ্রবণশক্তি সবচেয়ে শক্তিশালী ?

তাদের সবচেয়ে বড় শারীরিক সক্ষমতা আসলে অতি নিখুঁত শ্রবণশক্তি! উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় আমাদের চিরচেনা লক্ষী পেঁচার ( Tyto alba) কথা, তারা ঘুটঘুটে আঁধারেও দৃষ্টিশক্তির বিন্দুমাত্র সাহায্য না নিয়ে শতভাগ সাফল্য নিয়ে অতি দ্রুতগামী শিকার ধরতে সক্ষম।

দেশান্তরী প্রজাপতির ডানায় সারসের দেশে

হাইওয়ে ধরে যাবার পথে একবাসাতে তিনটি ধলা মাণিকজোড়ের ছানা দেখে কৌতূহল ভরে দাঁড়ানো হল, ভাগ্যিস দাঁড়িয়েছিলাম!

বন আর নদী

যতটুকু চোখ যায় দেখি শুধু বৃক্ষ। প্রাচীণ। নবীন। দীর্ঘকায়। পৃথুল। হলুদ পথটা হারিয়ে গেছে কোথায় যেন,তার জায়গায় দেখি এবার শুয়ে আছে নৃত্যরতা রমনীর মত দেখতে একটা নদী। এ নদীর নাম সাসান্দ্রা

সুনামগঞ্জে প্রশ্নবিদ্ধ শালিক

ধলাতলা-শালিক মেঘালয় ও আসামে দেখা যায়। সুনামগঞ্জ শহরে এর আবির্ভাব অবিশ্বাস্য কিছু নয়

মেঠো পথের লাজুক গুরগুরি ও আকাশের ঈগল

কী অপূর্ব একটা পাখি! দেখা মেলে না বলে তার পালকের চোখ ধাঁধানো সন্নিবেশন নজরে আসে না কখনো, আপন পরিবেশে একেবারে মাতিয়ে রাখল নানা অঙ্গিভঙ্গি করে! তবে খুবই লাজুক

ছদ্মবেশি রাতচরার খোঁজে

গ্রামের লোক একে বলে আতস পাখি। রাতে ওদের চোখ দিয়ে নাকি আগুন বেরোয়। এই ধারণা থেকে জন্মেছে ভয় ধরানো কত গল্প, কত কাল্পনিক কাহিনি!

কুয়াকাটার যতো পাখি

নতুন পাখি আবিস্কারের খবর শুনে অনেক পাখি পর্যবেক্ষকের মতো আমিও ঘরে বসে থাকতে পারিনি। সব জেলায়তো আর যাওয়া সম্ভব নয় ! আর অর্থেরও প্রয়োজন, তাই সাগরকন্যা কুয়াকাটাকেই বেছেনিলাম।

পাহাড় পাখি পাবলাখালি

ভয়ঙ্কর সুন্দর, অজগরের মতো লম্বা আর উঁচু-নিচু পাহাড়ি রাস্তা পেরিয়ে পৌঁছলাম সাজেক পাহাড়ে। দুঃসাহসিক অভিযানের স্বাদ পেতে আমারা কজন চান্দের গাড়ির ছাদে উঠে বসলাম।

নদী ও জীবনের সন্ধানে

কাপ্তাইয়ের পরবর্তী ভোরটি যে আমাদের জন্য এত বড় সারপ্রাইজ নিয়ে বসেছিল তা কখনও ভাবিনি! একদল লাল-বনমুরগি আর বিরল কালা-মথুরা আপন মনে ভুরিভোজন করছে! খুব কাছ থেকে অসাধারণ এই মুহূর্তটি

চমকপ্রদ হাকালুকি রিংগিং

প্রথমদিন হতাশ হলেও পরের দিন ঠিকই টনের সাফল্যে ধরা দিল বাংলা-রাঙ্গাচ্যাগা। পাখার বাহারী নকশা অত কাছ থেকে দেখে মুগ্ধ হলো সবাই, যেন কোনো দক্ষ শিল্পীর তুলিতে আঁকা

দীর্ঘতম আঙ্গুলের (বৃহত্তম পায়ের পাতার) অধিকারী পাখি

আমাদের দেশে বেশ কিছু জায়গায় বিশেষ করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে একই পরিবারের অপূর্ব সুন্দর পাখি দলপিপি ( Bronze-winged Jacana) স্থায়ী ভাবে বসবাস করে, উৎসাহীরা পরের বার এর পায়ের পাতার দিকে খেয়াল করেন!

নিমপ্যাঁচা ও তাঁর ছানা

বাংলাদেশে যে ৩ ধরনের নিমপ্যাঁচা আছে, তাঁর মধ্যে যেটিকে নিয়েই জীবনানন্দ লিখেছিলেন সেই কণ্ঠী নিমপ্যাঁচা (Collared Scops Owl) দর্শন দিল তাঁর ছানাপোনা সহ।

বড় কান পেঁচা আর সুন্দরতম হাঁসের খোঁজে

অবশেষে দেখা মিলল প্রার্থিত হাঁসটির, কিন্তু তার এমন দর্শন কেন! খুবই আকর্ষক দেখতে সে, কোনই সন্দেহ নেই

আলোচিত পোস্ট


ঢাকার মগারা...!(তাজমহল ভ্রমণ)

ঢাকার মগারা...!(তাজমহল ভ্রমণ)

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

মরক্কোতে ভুরিভোজ

মরক্কোতে ভুরিভোজ

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

আজকের ছবি-২৩-১১-১৭

আজকের ছবি-২৩-১১-১৭

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭