প্রাণিজগৎ নানা শ্রেণী উপশ্রেণীতে বিভক্ত। প্রত্যেকটা শ্রেণির রয়েছে নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য ও পরিচিতি। তবে প্রতিটা শ্রেণিতেই আছে কোন না কোন বিশালাকায় প্রাণী। এই বিশাল প্রাণিজগতে যারা অতিকায় আমাদের আয়োজন আজ সেসব প্রাণী নিয়ে। চলুন জেনে আসি এই বিচিত্র প্রাণী জগতের কিছু বিস্ময়কর দানব সম্পর্কে।

 

১। স্থলভাগের বৃহত্তম প্রাণী।

 

স্থলভাগের সবচেয়ে বড় প্রাণী হল আফ্রিকান বুনো হাতি। এরাই ভূভাগের প্রাণীদের রাজা। একটা প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষ হাতির ওজন হয় প্রায় ৬ টন, আর নারী হাতির ওজন হয় ৩ টনের মত। আফ্রিকার এই বুনো হাতির এই বিশাল শরীরের জন্য এদের তেমন কোন শত্রু নেই। এরা আফ্রিকার জঙ্গলে রাজার মতই দাপিয়ে বেড়ায়।

 

২। পৃথিবীর বৃহত্তম মাংসাশী প্রাণী।

 

পৃথিবীর সর্ব বৃহৎ মাংসাশী প্রাণী হল সিন্ধুঘোটক বা সামুদ্রিক হাতি। এক একটা প্রাপ্তবয়স্ক নারী শীলের ওজন হয় প্রায় ৪০০-৯০০ কেজি। আর পুরুষ শীল বা সামুদ্রিক হাতির ওজন নারীদের ওজনের প্রায় ৫-৬ গুণ বেশি হয়। এরা সমুদ্রে শিকার ধরে। এদের প্রিয় খাবার সামুদ্রিক মাছ ও স্কুইড।  

 

৩। স্থলভাগের বৃহত্তম মাংসাশী প্রাণী।

 

স্থলভাগের সর্ব বৃহৎ মাংসাশী প্রাণী হল মেরু ভালুক ও বাদামী ভালুক। এদের দুই প্রজাতির আকার প্রায় কাছাকাছি। এক একটা ভালুক উচ্চতায় প্রায় ৫ ফুট ও দৈর্ঘ্যে ১০ ফুটের মত লম্বা হয়। এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ওজনের যে মেরু ভালুক ও বাদামী ভালুক পাওয়া গেছে তাদের ওজন যথাক্রমে ১০০৩ কেজি ও ১১৩৫ কেজি।   

 

৪। পৃথিবীর বৃহত্তম সরীসৃপ।

 

পৃথিবীর বৃহত্তম সরীসৃপ হল নোনা জলের কুমীর। এই কুমীর উত্তর অস্ট্রেলিয়া থেকে সুদূর দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার ভারত সমুদ্র উপকূল পর্যন্ত পাওয়া যায়। প্রাপ্ত বয়স্ক নোনা জলের কুমীরের ওজন হয় প্রায় ৪০০-১০০০ কেজি পর্যন্ত। এরা দৈর্ঘ্যে ১৩-১৮ ফিট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে।

 

৫। পৃথিবীর বৃহত্তম উভচর।

 

পৃথিবীর সর্ব বৃহৎ উভচর হল চিনের দানব স্যালামান্ডর। স্যালামান্ডর অনেকটা গিরগিটির মত দেখতে। এরা জলে স্থলে দুই জায়গাতেই বাস করে। চিনের দানব স্যালামান্ডরের দৈর্ঘ্য ৬ ফুটের মত হয়। এই প্রজাতির স্যালামান্ডর খুবই দুর্লভ। চিনে এই প্রাণী বিভিন্ন ভেষজ ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয় তাই এরা অনেক পরিমাণে মারা যায়। এরা বর্তমানে বিপন্নপ্রায়।

 

৬। পৃথিবীর বৃহত্তম সাপ।

 

পৃথিবীর বৃহত্তম সাপ হল সবুজ অ্যানাকন্ডা। এই দানব সাপ লম্বায় প্রায় ২৫ ফুট পর্যন্ত হতে পারে এবং এদের এক একটার ওজন হয় প্রায় ২৫০ কেজি। তবে সবচেয়ে বড় যে অ্যানাকন্ডার প্রমাণ পাওয়া যায় তা ছিল প্রায় ৩২ ফুট লম্বা। এই অতিকায় সাপ পৃথিবীর উষ্ণমণ্ডলীয় বনের নদীর আশেপাশে পাওয়া যায়।

 

৭। পৃথিবীর বৃহত্তম উড়তে সক্ষম পাখি।

পৃথিবীর বৃহত্তম পাখি হল উটপাখি। এরা আফ্রিকা ও আরবের তৃণভূমিতে পাওয়া যায়। এক একটা উটপাখির ওজন হয় প্রায় ১৫০ কেজির মত এবং এরা উচ্চতায় ৯ ফিটের মত হয়। এদের এক একটা ডিমের ওজন হয় দেড় কেজির কিছুটা কম এবং এটাই পৃথিবীর সর্ব বৃহৎ ডিম। তবে উটপাখি উড়তে পারে না। উড়তে সক্ষম পাখিদের মধ্যে সর্ব বৃহৎ হল পেলিকান প্রজাতির ডালমাটিয়ান পেলিকান পাখি। এদের ওজন ১১-১৫ কেজির মত হয়।

 

৮। পৃথিবীর বৃহত্তম কাঁকড়া।

 

আর্থোপোডা পর্বের সর্ব বৃহৎ প্রাণী হল জাপানিজ মাকড়সা কাঁকড়া। এই কাঁকড়া জাপানের গভীর সমুদ্রে পাওয়া যায়। এদের এক একটা পায়ের দৈর্ঘ্য হয় ১২ ফুটের মত এবং ওজন ১৮ কেজি ছাড়িয়ে যায়। এরা প্রধানত সামুদ্রিক শামুক ও ঝিনুক খেয়ে বেঁচে থাকে এবং এরা প্রায় ১০০ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে।   

 

৯। পৃথিবীর বৃহত্তম অস্থিময় মাছ।

 

পৃথিবীর বৃহত্তম অস্থিময় মাছ হল সামুদ্রিক সানফিস। এদেরকে অস্থিময় মাছও বলা হয়। এই প্রজাতির মাছের মেরুদণ্ড কার্টিলেজের বদলে হাড় দিয়ে তৈরি হয়। এদের প্রায় ২৯০০ ধরনের প্রজাতি রয়েছে। সানফিসের বৈজ্ঞানিক নাম মোলা মোলা। সানফিস প্রায় ৮ ফুটের মত লম্বা হয় এবং এদের গড় ওজন হয় ১০০০ কেজির মত। তবে ১৯১০ সালে সর্ব বৃহৎ যে সানফিস ধরা হয় তার ওজন ছিল ২৩০০ কেজি এবং এটা লম্বায় ছিল ১৪ ফুট।

 

১০। পৃথিবীর বৃহত্তম প্রাণী।

 

পৃথিবীর সর্ব বৃহৎ প্রাণী হল নীল তিমি। এই অতিকায় মাছ প্রায় একটা বাস্কেটবল কোর্টের আকারের হয়। এদের জিহ্বার ওজন একটা এশিয়ান হাতির সমান। পৃথিবীর এই বৃহত্তম প্রাণী লম্বায় প্রায় ৩০ মিটার অর্থাৎ প্রায় ১০০ ফুটের মত হয় এবং প্রাপ্ত বয়স্ক তিমির ওজন হয় ১৮০ মেট্রিক টন। এরা সামুদ্রিক প্ল্যাঙ্কটন খেয়ে বেঁচে থাকে এবং প্রতিদিনের চাহিদা মেটাতে এদের প্রায় সাড়ে ৩ মেট্রিক টন প্ল্যাঙ্কটন খেতে হয়।