বয়সের দিক দিয়ে ইউরোপের সবচে’ প্রাচীন আর স্বচ্ছ জলের লেকের জন্য আমাদের যেতে হবে মেসিডোনিয়া আর আলবেনিয়া সীমান্তে। পঞ্চাশ লক্ষ বছর আগে তৈরী হওয়া প্রকৃতির এই বিস্ময়কর লেকটি বলকান এলাকার সবচে’ গভীরতম লেক। ৩৫৮ বর্গ কিমি এ লেকটির ৬৫ ভাগ মেসিডোনিয়াতে, বাকী ৩৫ ভাগ আলবেনিয়ায়।

ওরিদের একদিকে আছে মেসিডোনিয়ার শহর ওহরিদ আর স্ত্রুগা অন্যদিকে আছে আলবেনিয়ান শহর পোদ্রাদেক। সারা বিশ্ব থেকে যে ভ্রমনপিপাসু মানুষেরা ছুটে আসেন তাদের কাছে স্বচ্ছ নীল জলের এই লেক এক বিস্ময়। এই লেকের পানি এতটাই স্বচ্ছ যে, উপর থেকে প্রায় ২৫ মিটার গভীর পর্যন্ত নজরে আসে। তার গভীরতার মতই সে ধারন করে আছে সভ্যতার বিস্ময়, লেকের পাশে অবস্থিত ওহরিদ শহর প্রাচীনত্বে ট্রয় নগরীর সমান।

ঘুরতে গেলে লেকের নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের সাথে আপনি পেয়ে যাবেন নৌকা ভ্রমন আর সেই সব গ্রাম যেখানে মূল জীবিকা মাছ ধরা। 501 must visit natural wonders বইটা পড়ে জানা যায় ইউরোপের প্রাচীনতম লেক ওহরিদের কথা, এখানে অন্তত ২০০ ধরনের প্রাণ আছে যা বিশ্বের আর কোথাও মেলে না। যার মাঝে আছে ৮ ধরনের মাছ, বিশেষ করে কোরান নামের মাছটি যার মাংস গ্রীষ্ম-শীতে সাদা থেকে লালে রূপান্তরিত হয়। আসলে শেষ হিমযুগের সময় ইউরোপের প্রায় সব হ্রদেই নতুন জল এসেছিল কিন্তু ওহরিদে নানা কারণে সেই প্রাচীনতা রক্ষা পেয়েছে। ১৯৭৯ তে ইউনেস্কো একে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট এর মর্যাদা দেয়।

ট্যুরিস্ট আকর্ষন তীব্রতর হয় যখন ২০১০ সালে নাসা শনি গ্রহের চাঁদ টাইটানের একটি লেককেও “লেক ওহরিদ” ঘোষণা দেয়। লেক ঘিরে গড়ে উঠা শহরগুলোতে ভ্রমনপিয়াসু মানুষের জন্য আজও অভ্যর্থনা হয়ে জেগে আছে লেক ওহরিদ।