রোমের সবচেয়ে বড় ঝর্না ত্রেভির সামনে, ৮৫ ফিট দীর্ঘ আর ৬৫ ফিট প্রসস্থ ঝর্নাতে অসংখ্য মর্মর ভাস্কর্যের ছড়াছড়ি কিন্তু এর শাসনকর্তা ঠিক ঝর্নার দেয়ালের কেন্দ্রস্থলে দাড়িয়ে থাকা সাগর দেবতা নেপচুন, তার রথের উপরে বিশ্বশাসনের ভঙ্গিমায়।

তিন রাস্তার মোড়ে অবস্থিত এই বিশাল ঝর্নাটির নির্মাণ কাজ প্রাক রেনেসাঁ যুগে শুরু হলেও তা শেষ হয় ১৭৬২ সালে। রোমে দর্শনার্থীরা সবাই-ই ত্রেভি ঝর্নার জলের কিনারে উল্টো হয়ে পয়সা ছুড়ে মারেন, এর অর্থ তারা আবার কোন না কোন সময়ে রোমে প্রত্যাবর্তন করবেন।

এক সমীক্ষায় জানা গেছে এতে প্রতিদিন বাংলাদেশী টাকায় তিন লক্ষ টাকার উপরে পাওয়া যায়, যা রোমে দুঃস্থদের জন্য প্রতিষ্ঠিত একটি দাতব্য সংস্থায় যায়। চারিদিকে লাখো পর্যটকের ভিড়, সবাই চাইছে মুদ্রা ঝর্নার জলে নিক্ষেপ করে নিজের ভালবাসার রোমে বারংবার ফিরে আসা নিশ্চিত করতে। রোমের প্রতি, এর শিল্পের প্রতি, এর কারিগরির প্রতি, এর অধিবাসীদের প্রতি একবুক অব্যক্ত ভালবাসা।