নানা দেশ ঘুরে এসে ছবি ইন্সটাগ্রাম আর ফেসবুকে দিয়েই কি শুধু ভ্রমণস্মৃতি ধরে রাখেন আপনি? কিন্তু এই ভার্চুয়াল দুনিয়ার বাইরেও একটা বাস্তব জীবন আছে যেখানে আপনার ভ্রমণের আনন্দময় স্মৃতি গুলো প্রতি মূহূর্তে আপনাকে উদ্দীপিত করতে পারে জীবন চলার পথে এগিয়ে যেতে।

ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম বা স্রেফ ছবি তোলা ছাড়াও আর অভিনব কিছু করতে পারেন আপনার ভ্রমণস্মৃতি গুলোকে বাচিয়ে রাখতে।

১। ব্যাকপ্যাক এ পতাকার অনুলিপি লাগানঃ

বিভিন্ন দেশে ভ্রমণের সময় সেখানকার জাতীয় পতাকার অনুলিপি সংগ্রহ করে ব্যাকপ্যাকে লাগিয়ে নিন!

২। ট্যাটুঃ

ভ্রমণ সম্পর্কিত দারুণ দারুণ ট্যাটু রয়েছে। তবে সবথেকে ভালো হল পৃথিবীর মানচিত্র একে নিয়ে এক এক দেশ ঘোরা, আর ঘোরা শেষ হলে ওই দেশের মানচিত্রের ট্যাটু রঙ দিয়ে ভর্তি করে ট্যাটু করে দেয়া।

৩। নিজেরমত করে ডিপার্চার বোর্ড তৈরিঃ

বিমানবন্দরে যেমন বিভিন্ন দেশের বিমানের ছেড়ে যাওয়ার সময় দেখায় ডিপারচার বোর্ডে, তেমনি আপনি কোন দেশে কখন গেছেন তার সাল দিয়ে নিজের মত একটা ডিপারচার বোর্ড তৈরি করতে পারেন।

৪। দেশের নাম খোদাই করা চাবির রিংঃ

ভ্রমণ শেষে ওই দেশের নাম খোদাই করা চাবির রিং সংগ্রহ করতে পারেন

৫। ট্রাভেল সাইনপোস্টঃ

বাড়ইর সামনে আপনার ভ্রমণ করা দেশের নাম সম্বলিত এরকম একটা ট্রাভেল সাইনপোস্ট মন দেখাবে না কিন্তু!

৬। পাসপোর্ট স্টাম্প পোস্টের আদলে ফোন কেসঃ

এখন তো ফোনের কভার ডিজাইন করা কোন সমস্যাই না! তো পাসপোর্টের স্টাম্প পেইজের আদলেই বানিয়ে নিতে পারেন নিজের ফোনের কভারটি!

৭। ভ্রমণের স্ক্রাপ বুকঃ

বিভিন্ন দেশ ঘোরার ছবি, দর্শনীয় স্থানে ঢোকার টিকেট, বাস-ট্রেনের টিকেট, স্টাম্প, পোস্টকার্ড, রেস্টুরেন্ট বিল, ওই দেশের টাকা এমনকি জরিমানার রিসিট ও অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন স্ক্রাপবুক এ। অবসরে পাতা উল্টালে আপনার মুখে হাসি ফুটবে, নিশ্চিত!

৮। বালি সংগ্রহঃ

সমুদ্রপ্রেমী হয়ে থাকলে এটি আপনার জন্য ভালো আইডিয়া!

৯। ফ্রিজ ম্যাগনেটঃ

বিভিন্ন স্থান থেকে আকর্ষনীয় ফ্রিজ ম্যাগনেট সংগ্রহ করুন আর বাড়ি ফিরে লাগিয়ে দিন ফ্রিজের গায়ে।

১০। মুদ্রাঃ

মুদ্রা মানে কিন্তু শুধুই পয়সা না! প্রত্যেক দেশে ভ্রমণ শেষে কাগুজে বা ধাতব যেই মুদ্রাই বাচুক না কেন, রেখে দিন তাদের স্মৃতি হিসেবে।

   

যতবার আপনি দেখবেন ওই দেশ গুলোর আনন্দময় স্মৃতি গুলো, ভালোলাগায় ভরে যাবে আপনার মন, তখন কিন্তু অনুভ্রমণ কে ধন্যবাদ জানাতে ভুলবেন না!