আমরা সবাই জানি বর্তমান বিশ্বে জলবায়ু ও পরিবেশ বিনষ্টের প্রধান কারণ জনসংখ্যার অনাকাঙ্ক্ষিত বিস্ফোরণ। মানুষের সৃষ্ট কার্যকলাপের কারণে বিশ্ব পরিবেশে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করে কিভাবে বিপর্যয় ডেকে আনছে তা এই ছবিগুলো দেখলে স্পষ্ট বুঝা যাবে। পৃথিবীব্যাপী বনাঞ্চলের ধ্বংস প্রাপ্তির পর্যায়ক্রম ক্ষতির কোন কোন পর্যায়গুলোকে করে তুলেছে দৃশ্যমান।

প্রাকৃতিক পরিবেশের অতি ব্যবহারের ফলে পরিবেশে নির্দয়ভাবে করুণ পরিণতি সৃষ্টি হচ্ছে। ইকোসিস্টেমের অধিকাংশ অবক্ষয়ের কারণই হলো মানুষ। পরিবেশের অবনতি, বায়ু দূষণ, বনাঞ্চল নিঃশেষ, বায়ুমন্ডলের ওজন স্তর ক্ষয়িষ্ণু করা ও সাগরের পারিপার্শ্বিক অবস্থাসমূহ বিনষ্ট করার জন্য প্রধান দায়ভার মানুষের।

জনসংখ্যার আধিক্য, লাগামহীন চাহিদার প্রয়োজন, অনধিকার কৌতূহলের বশে বিচিত্র পরীক্ষা নিরীক্ষা, নিউক্লিয়ার শক্ত প্রতিষ্ঠ, প্রাকৃতিক সম্পদের যথেচ্ছ ব্যবহার আর অপচয়ের দ্বারা মানুষ প্রকৃতি প্রদত্ত অমূল্য সম্পদকে বৈশ্বিক আবর্জনা ক্যানে পরিণত করেছে।

আমরা এমনই কিছু ছবি বোরড পান্ডা থেকে সংগ্রহ করেছি, যা জনবিস্ফোরণের বিধ্বংসী প্রভাব প্রদর্শন করে। 

ন্যাশনাল উইলিয়ামেট ফরেস্টে ৯০% বৃক্ষশূন্য করা হয়েছে, অরেগন (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)।

 বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দ্বীপ জাভায় (ইন্দোনেশিয়া) আবর্জনাপূর্ণ ঢেউয়ের উপর সার্ফিং করছে।

 মঙ্গোলিয়ার ইয়েলো নদী এতো দূষিত যে, এর কাছাকাছি থাকলে শ্বাস নেয়া প্রায় অসম্ভব।

 ক্যান নদী তেল ক্ষেত্র, ১৮৯৯ সাল থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে।

মেক্সিকো উপসাগরে তেল প্ল্যাটফর্মে আগুন, এপ্রিল ২০১০।

বাংলাদেশে আবর্জনাপূর্ণ প্রাকৃতিক ভূদৃশ্য।

 ইন্দোনেশিয়ার বন পাম চাষে রূপান্তরিত হচ্ছে।

ব্রাজিলের অ্যামাজন জঙ্গলের কিছু অংশ ভিন্ন উদ্দেশ্যে ব্যবহারের জন্য পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে। 

 পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এস্কেভেটর, জার্মানির ট্যাজেবাউ হ্যাম্বচ স্ট্রিপ খনি থেকে কয়লা উত্তোলন করতে ব্যবহৃত হয়।

 ঘানার আকরাতে ল্যান্ডফিল। ইলেকট্রনিক আবর্জনা সাধারণত তৃতীয় বিশ্বের দেশে পরিসমাপ্তি ঘটে।

 মেক্সিকো শহরের ভূদৃশ্য, ২০মিলিয়ন বাসিন্দা

 দ্বীপের মাঝপথে (উত্তর প্রশান্ত মহাসগরের) অত্যধিক প্লাস্টিক আহারের কারণে বৃহদাকার সামুদ্রিক পাখির মৃত্যু ঘটেছে।

গ্রীনহাউসে আচ্ছাদিত ভূদৃশ্য, আলমেরিয়া, স্পেন

 কানাডার আলবার্টায় আলকাতরা সমৃদ্ধ অঞ্চল, খনি ও বিষাক্ত বর্জ্য দ্বারা ধ্বংস হয়েছে।

 বৈশ্বিক উষ্ণতা এবং মানব কর্মের কারণে মালদ্বীপে বন্যা হয়। তাঁরা ৫০ সালের মধ্যে পানিতে ডুবে যাবে বলে বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

 মীর খনি, রাশিয়া। এই বিশাল গর্তটি বিশ্বের বৃহত্তম হীরা খনি।

নরওয়ের সোভালবার্ড দ্বীপের কাছে বিশাল বরফ গলে যাচ্ছে।

বোরড পান্ডা থেকে সংগৃহীত।