Dimsum (ডিম্ সাম) একটা চাইনীজ খাবার যেটা ছোট ছোট বাঁশের বাটিতে ছোট পর্শনে পরিবেশন করে যাকে ইংলিশে বলে bitesize পোরশন | Dimsum সব সময় চাইনীজ জেসমিন গ্রীন টি দিয়ে খাওয়া হয় | চাইনীজ গ্রীন টি খাবার হজমে খুবই উপকার করে | তাই dimsum খাবার আস্তে আস্তে আয়েশ করে অনেক সময় নিয়ে বন্ধুবান্ধব দের সাথে আড্ডা দিতে দিতে চাইনীজ টি এর সাথে খাওয়া হয় |

Dimsum পরিবেশনাDimsum পরিবেশনা

Dimsum পরিবেশনা করা হয় cantonese waitress রা চাকা-সহ ট্রে তে বিভিন্ন খাবার প্রদর্শনী করতে করতে নিয়ে যায় | যেটা পছন্দ হয় সেটা চাইলে টেবিলে রেখে যায় | কিছু কিছু বিখ্যাত dimsum -এর আইটেম হলো ডাম্পলিং, আঠালো ভাত (sticky rice ) চিংড়ি মাছের অথবা গরুর মাংসের রাইস রোল, হাঁসের পা, স্কুইড, কনজি, গরুর পাকস্থলী. Dimsum খাবারের স্বাদ একেকটা ইটেমের একেক রকম |

গরুর পাকস্থলীগরুর পাকস্থলী

হাঁসের পাহাঁসের পা

চালের গুঁড়ো দিয়ে ময়দা বানিয়ে সেটার রোল খেতে অনেক সুস্বাদু এবং অনেক স্বাস্থকর | সেগুলাও ভাজা না, steam করা, যে জন্য সেটা অনেক স্বাস্থকর একটা খাবার | আর একটু ঝাল সস হলে তো কথাই নেই | চাইনীজ রা রাইস রোল গুলো সয় সস দিয়ে খায় | সেটাতে একটু নোনতা স্বাদ হয় | হাঁসের পা (না, রান নয় সত্যিই পা, পা এর আঙ্গুল ব্ল্যাক বীন সস দিয়ে একটা তৈরী খাবার এতো মজার!

স্কুইড টেন্টাকেল স্কুইড টেন্টাকেল

স্কুইড টেন্টাকেল ডোবা তেলে ভাজা ঝাল সস দিয়ে খেতেও দারুন লাগে | কিনতু এই আইটেম টা বেশ তৈলাক্ত, স্বাস্থ্যের জন্য খুব একটা ভালো না | আর স্কুইডের মাংস টা অনেক শক্ত বলে অনেক্ষন ধরে চাবাতে হয় | সেটার জন্য মজবুত দাঁতের প্রয়োজন! কনজি ইটেমটা অনেকটা ছোট বেলাতে জ্বর আসলে মা যে পিশপাশ বানিয়ে দিতো, ওইটারি চাইনীজ ভার্সন. প্রচুর আদা দিয়ে জাও ভাত স্যুপের মতন করে মুরগি অথবা মাছ দিয়ে বানানো হয় |

চাইনীজ গ্রীন টিচাইনীজ গ্রীন টি

সব মিলিয়ে dimsum খুবই মজার একটা অভিজ্ঞতা | ছুটির দিনে একটু দেরিতে ঘুম থেকে উঠে দশটা এগারোটার দিকে যখন ঠিক সকালের নাস্তার সময় পেরিয়ে গেছে কিনতু দুপুরের ভাতের সময় টাও হয় নাই, এই সময় dimsum এর তুলনা নাই !!