কলকাতাতে যারা পরিবার নিয়ে বা একা ভাল পরিবেশে, আরামদায়ক ভাবে, এসি তে, রুচিসম্মত খাবার ( দাম মধ্যম পর্যায়ের, একবারে সস্তা নয়, আবার ৫ তারকা মানের দামীও নয়) খেতে চান, তারা যেতে পারেনঃ

১। মারকুইস ষ্ট্রীট আর রফি আহমেদ কিদোয়ারী রোড এর সংযোগস্থল থেকে ব্যাংক অব বারোদা বা আইসিআইসিআই ব্যাংক এর এটিএম বুথ এর দিকে অসাধারন এক রেস্তোরায় -- আফ্রীন রেস্টুরেন্ট এ ( হালাল খাবার এর জন্য)। আফ্রীন রেস্টুরেন্ট এ আমাদের কিছু ছবি পাবেন এটাচমেন্টে।

হলদিরামের আরো মিষ্টিহলদিরামের আরো মিষ্টি

২। অসাধারণ সব উন্নত আর মুখরোচক খাবারের সমাহার পাবেন, হলদিরামে। যা আমার মুখে এখনো আছেঃ রাজ কাচোরি, দোসা ( সাউথ ইন্ডিয়ান ফুড), কাচরি চাট, পাপড়ি চাট, রসগোল্লা, মিষ্টি দই ।

৩। পার্ক স্ট্রিট মেট্রো ষ্টেশন এর কাছে ডোমিনো'স পিজা, Trincas, Magnolia, One Step Up, Flurys, টুং ফুং এ যেতে পারেন বাংলাদেশের চাইনিজ ফুড থেকে ভিন্ন স্বাদের ।চাইনিজ ফুড খেতে চান।

৪। রাসেল ষ্ট্রিট এ Waldrof

৫। পার্ক স্ট্রিট আর রানী রাশমনী রোড এর সংযোগস্থলে ম্যাকডনাল্ড'স এ

সাউথ ইন্ডিয়ান ফুড উথাপামসাউথ ইন্ডিয়ান ফুড উথাপাম

৬। পার্ক স্ট্রিট আর রানী রাশমনী রোড এর সংযোগস্থলে বিপরীতে স্যার উইলিয়াম জোন্স সরণীতে Bistro by the park, Golden spoon

৭। মিডল্টন স্ট্রিট এ Fire and Ice Pizzeria

 অসাধারণ স্বাদের গরুর গোশত সহ বিভিন্ন ধরনের শুধুমাত্র হালাল ফুড যদি খেতে চান আপনার আশে পাশে কাউকে জিজ্ঞেস করলেই খোঁজ পাবেন আপনার নিকটস্থ যে কোন রেষ্টুরেন্টে যেখানে আপনি পাবেন গরুর গোশত, কাবাব মাছের ঝোল সহ অসাধারণ স্বাদে বিভিন্ন ধরনের হালাল ফুড।

দোসাঃদোসাঃ

এছাড়াও স্বাদ পরিতৃপ্তির সেরা জায়গাগুলোতে যেতে পারেনঃ অর্কিড (চীনা ও থাই) , স্যাফরন, রেড হট চিল্লি পিপার, জারাঞ্জ, জায়কা, ভাটিকা, উড়ুপি (ভারতীয়), চাইনিজ প্যাভিলিয়ন সহ অনেক অনেক রেস্টুরেন্টে।

হলদিরামের নানা রকম মিষ্টির সমাহারহলদিরামের নানা রকম মিষ্টির সমাহার

যারা পরিবার নিয়ে বা একা কম দামে খেতে চানঃ

খাবারের অসংখ্য ছোট ছোট রেষ্টুরেন্ট পাবেন মারকুইস ষ্ট্রীট, সদর স্ট্রিট এ যেখানে ভাত, মাছ সহ অনেক বাঙ্গালী ঘরোয়া খাবার পাবেন কম দামে, যদিও পরিবেশ ভাল নয়। এ ধরনের রেষ্টুরেন্ট গুলোতে খাবারের আগে অবশ্যই কি খাবেন আর দাম কত তা কনফার্ম করে নিন ওয়েটারের কাছ থেকে। বিশেষ করে যারা গ্রুপ করে যান।

হালদিরামের রাজ কাচোরি হালদিরামের রাজ কাচোরি

হিচ হাইকার, ব্যাকপ্যাকার, যারা চান দ্যা চিপেষ্ট ফুডঃ

কলকাতাতে এমন কোন জায়গা আমি পাইনি যেখানে রাস্তার ওপর খাবারের দোকান নেই, স্ট্রিট ফুডের ছড়াছড়ি মারকুইস ষ্ট্রীট, আলিমুদ্দিন স্ট্রীট , চউরিঙ্গী লেন, রফি আহমেদ কিদোয়ারী রোড, কলিন লেন, সদর স্ট্রীট, রানী রাশমনী রোড, লিন্ডসে স্ট্রিট, লেনিন সরণী রোড, পার্ক স্ট্রিট, জাকারিয়া স্ট্রিট, সেন্ট্রাল এভিনিউ, আম্রাতলা লেন, রাজস্থান গেষ্ট হাউজ বা নাখোদা মসজিদ এর আশে পাশে। পেয়েছি বাঙ্গালী থেকে চাইনিজ, সাউথ ইন্ডিয়ান থেকে নর্থ ইন্ডিয়ান সহ সবই সস্তা ও সাধ্যের মধ্যে।

চিকেন শিক কাবাবের সাথে পরটাচিকেন শিক কাবাবের সাথে পরটা

যারা স্ট্রিট ফুড এ অভ্যস্ত, গরম গরম অসাধারণ সুস্বাদু খাবার খেতে চান কিন্তু খাবারের আশেপাশের পরিবেশ নিয়ে মাথা ঘামান না, খেতে চান দ্যা চিপেষ্ট, হাইজেনিক এর বিষয়টা যাদের কাছে ধর্তব্য নয়, দাঁড়িয়ে খেতে অভ্যস্ত, তারাঃ

 সকালে খেতে পারেন মারকুইস ষ্ট্রীট, সদর স্ট্রিট, নিউ মার্কেট এ থাকা অসংখ্য সব টং দোকান আর বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে ফুটপাতে প্লাস্টিক দিয়ে ঢাকা প্লেটে নানা রকম ফল দিয়ে সাজানো মিক্সড ফ্রুট সালাড। খুব সস্তায় ( ১৫ - ২০ টাকা), তাজা ফলের রস খেয়েছি ( কমলা, মাল্টা আর মুসাম্বি), আমার সামনেই ফল থেকে নিংড়ে গ্লাসে করে পরিবেশন করল কোন পানি কিংবা চিনি ছাড়াই, ১৫ , ২৫ আর ৩০ টাকা দাম প্রতি গ্লাস, খেতে পারেন মিষ্টি । সদর স্ট্রিট থেকে নিউ মার্কেট যেতে গলির ভেতর পাবেন অনেক ছোট দোকান, সেখানে কম দামে দাড়িয়ে থেকে খেতে পারেন টোস্ট, মাখন, জ্যাম, চা।

হালদিরামের অসাধারণ লাচ্ছিহালদিরামের অসাধারণ লাচ্ছি

লাঞ্চ এর সময় তিল ধারণের জায়গা থাকে না। Eastern Railway HQ, NS Rd, Fairley Place, BBD Bagh এর কাছে, লাল দালান ঘেঁষে ফুটপাথের দুই ধারে অনেক টং দোকান পাবেন। খেতে পারেন, কয়লা ছেকা ফুলে উঠা রুটি, গরম ভাত আর ডাল, ভাতের ওপর গরম ডাল, পাশে একটু আলু ভাজা আর মেথি ফোড়ন দিয়ে করা পেঁপের তরকারি ।পেটপুরে যত পারেন ( ভাত আর ডাল ছাড়া বাকী খাবারগুলো কিন্তু পেটপুরে নয় ! ! !) সাথে নানা রকম মাছ, সবজি, ডিম, ভর্তা, মিষ্টি, নানা রকম খিচুরী, বিরিয়ানী, ফল সহ আরো অসাধারণ সব খবারের সমাহার। কিছু কিছু টঙ্ক দোকানে সবজি ভাত ১৫ টাকা। ডিম ভাত ২০ টাকা। আর পেঁয়াজ মরিচ ফ্রি। আরো পাবেন ঘুগনি, তরকা, কচুরি-আলুর দম, রসগোল্লা, পিঠে-পুলি ।

সন্ধ্যায় খেতে পারেন মাটির ভাঁড়ে স্বর সহ গরুর খাঁটি দুধ ( খাঁটি গরুর দুধ নয় কিন্তু) , চা, যা আমি শুধুমাত্র কোলকাতাতেই পেয়েছি, আমাদের কিছু ছবি পাবেন এটাচমেন্টে। 

কয়লায় ভাজা ভুট্টাকয়লায় ভাজা ভুট্টা

অসাধারণ নুন ছাড়া পনির, গরম গরম বিভিন্ন ধরনের কাবাব, নুডুলস সহ আরো কত কি ! ! ! ! ! নিউ মার্কেটের লোকাল খাবারের স্টল থেকে খেতে পারেনঃ ফ্রায়েড রাইস , চাওমিন , পেস্ট্রি , চিকেন বিরিয়ানি , কাঠী রোল , দই বড়া, পানিপুরি, ফ্রাইড চিকেন , চিলি চিকেন , ফ্রেঞ্চ ফ্রাইজ, ক্রিম চিজ দেওয়া এগ রোল, লিভার রোল, ক্লিয়ার সুপ, চিকেন মম ( যা আমি নেপালেও খেয়েছি), দোসা, ছোলা বাটোরা, কাবাব ( পার্ক সার্কাস থেকেও খেতে পারেন)

 

 যদি অত্যন্ত কম দামে অসাধারণ স্বাদের গরুর গোশত সহ শুধুমাত্র বিভিন্ন ধরনের হালাল ফুড খেতে চান, তবে মারকুইস ষ্ট্রীট, আলিমুদ্দিন স্ট্রীট , চউরিঙ্গী লেন, রফি আহমেদ কিদোয়ারী রোড, কলিন লেন, সদর স্ট্রীট, রানী রাশমনী রোড, লিন্ডসে স্ট্রিট, লেনিন সরণী রোড, পার্ক স্ট্রিট, জাকারিয়া স্ট্রিট, সেন্ট্রাল এভিনিউ, আম্রাতলা লেন, রাজস্থান গেষ্ট হাউজ বা নাখোদা মসজিদ এর আশে পাশে যে কোন রিকশাওয়ালাকে জিজ্ঞেস করলেই তারা আপনাকে নিয়ে যাবে আপনার নিকটস্থ যে কোন রেষ্টুরেন্টে যেখানে আপনি পাবেন অত্যন্ত কম দামে আচার, পাঁপড়, লুচি, তরকারি, মাছের ঝোল সহ অসাধারণ স্বাদের হালাল ফুড। অনেক দোকানে গরুর গোস্ত পেয়েছি, অন্ততপক্ষে ৫ থেকে ১০ রকমের। খেয়েছি বিভিন্ন ধরনের বিরিয়ানী।

কলকাতাতে উপভোগ করেছি বাঙালি, চীনা, উত্তর ভারতীয় , থাই, দক্ষিণ ভারতীয়, মূঘলীয় ও কন্টিনেন্টাল খাবার।