অ্যাডভেঞ্চার

জন্ম যেখানেই হোক না কেন,পদচালন হওয়া চাই সবখানে

প্রথমবার বান্দরবন যাওয়া, দ্বিতীয় বারের মতো পাহাড়ের প্রেমে পরা, তৃতীয় বারের মতো বাসার বাইরে একা বের হওয়া এবং শেষ বারের মতো বুঝে নেওয়া যে প্রকৃতি বিলাস সখ নয় আমার হ্যাপি স্পেস তথা নেশা এবং জীবন যাপনের অন্যতম মৌলিক চাহিদা!!!

আল্পস্ শিখরে - ২

পায়ের নিচে সুবিশাল আল্পস্ পর্বতমালা, যে দিকেই তাকাই শুধু মাইলের পর মাইল বিস্তৃত রহস্যে মোড়া পর্বত, সে কি আবেগময় মুহূর্ত। পথের সমস্ত কষ্ট এক নিমিষে তুচ্ছ মনে হল,

আল্পস্ শিখরে - ১

খ্যাতির বিচারে মাউন্ট এভারেস্টের পরপরই যার অবস্থান সেই হল ফ্রান্সের আল্পসে অবস্থিত মাউন্ট ব্ল্যাঙ্ক, যাকে ফরাসীরা নাম দিয়েছে মঁ ব্লা অর্থাৎ শ্বেত ললনা !

চিতোয়ানের গহীন বনে

বনের মাঝখানে এক চিলতে কাদাভরা জলাভূমি, তাতে কিছু জায়গা নিয়ে জন্মেছে পুরুষ্টু সবুজ ঘাস, জনাব গণ্ডার তাই খেয়ে চলেছে মনের সুখে, আমাদের দিকে ভ্রুক্ষেপই করল না।

কুকুরস্লেজ নিয়ে পৃথিবীর শেষ প্রান্তে হাড়-কাঁপানো একটি দিন

অচেনা উপত্যকা, অজানা বাহন। জনে জনে একটি করে স্লেজ নিয়ে দিক-চিহ্নহীন সাদা তুষারের মধ্যে বেরিয়ে পড়তে হবে। হাতে ধরে আমাদের কেউ শিখিয়ে পড়িয়ে পাকা করে দেবে সে সুযোগ নাই।

শুধু তারাদের দেখানো পথে যারা বিশ্বভ্রমণ করছেন

সূর্য নীল দিগন্তে দুব দিলো একটি প্রাচীন দেখতে নৌকা কোন মোটর ছাড়া এবং কোন নৌ চালানোর সরঞ্জাম ছাড়া প্রশান্ত মহাসাগরের অফুরন্ত ঢেউ এর মাঝে দিয়ে যাত্রা শুরু করলো।

মৃত্যু-শীতল সুমেরুতে অতুলনীয় অ্যাডভেঞ্চার

তাপমাত্রা মাইনাস ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। হাঁসফাঁস করে দৌড়াদৌড়ি আর হাঁটাহাঁটি যাই করি, শরীর উত্তপ্ত হয় না। নিস্বাস-প্রশ্বাসে যে পানি থাকে তা ভ্রূ আর চোখের পাপড়িতে বরফ হয়ে জমছে; দস্তানা-মোড়া হাত দিয়ে বার বার বরফ না ঝাড়লে চোখ বন্ধ হয়ে যায়।

বাদুড়গুহার আঁধার দুপুর-পাহাড়ি বাংলায়

কয়েক মুহূর্ত পরেই সূর্যের ঝকঝকে রোদ আড়ালে চলে গেল, আর আমাদের গেরিলা ট্রেনিঙের মত হাতে –বুকে ভর দিয়ে এগোতে হল বেশ কিছুক্ষণ,

দূর পাহাড়ের আমন্ত্রণে- ৩

ঝর্ণার নিচের দিকে রংধনু, এত্ত রঙ, এত সৌন্দর্য কেন এতদিন আমাকে গ্রাস করেনি। বাবা-মায়ের উপর খুব রাগ হচ্ছিল। উপরের দিকে তাকিয়ে ঝর্ণার শুরুটা খুঁজতে চাইলাম কিন্তু সেটা আদৌ সম্ভব নয়

ভিসুভিয়াসের জ্বালামুখ থেকে

২০০০ বছর আগেই ভিসুভিয়াসের অগ্ন্যুৎপাতের ফলে ধ্বংস হয়ে গেছিল পম্পেই সহ পাঁচটি শহর। তারপরও কয়েকবার ক্ষেপে উঠলেও তেমন প্রলয়ঙ্করী রূপ দেখা যায় নি এখন পর্যন্ত

প্রথার সাথে ভেঙ্গে- নিজের পথ খুজে নিচ্ছেন এই ট্রেইল রানার

উচু পর্বতের দৌড় বিস্ময় মীরা রাই খেলার মাধ্যমে নেপালের মেয়েদের সাহায্য করার লক্ষ্যে নেমেছেন। 

দূর পাহাড়ের আমন্ত্রণে ২

বসে ঘাস ছুঁয়ে বই পড়তে পারব, আকাশের দিকে তাকিয়ে মাতাল হতে পারব এমন অফুরন্ত অনিশ্চিত সময় না হলে পৃথিবীর কাছে নিজেকে খুব অকৃতজ্ঞ মনে হয়।

এভারেস্ট ডায়েরী- ২

স্পশট মনে আছে। কয়েকটা স্তব্ধ মুহুর্ত, আর বারকয়েক লম্বা নিঃশ্বাস নিতে হয়েছিল আমার সেই অসহ্য সুন্দরের মাঝে স্রেফ ধাতস্ত হতে।

ড্রাকুলার দুর্গ

গভীর রাতে এভাবে জানালা গলে বেরিয়ে আসছেন কেন কাউন্ট? কয়েক মুহূর্ত পরেই আমার অবাক ভাবটা গভীর আতঙ্কে পরিণত হল। বন্ধ হয়ে যাবার উপক্রম হল হৃৎপিণ্ডের গতি

বনপলাশীর পদাবলী-বারৈইয়ারঢালা

ঘন পাহাড়ি বনের মাঝে চলে গেছে পিচ ঢালা রাস্তা। এমনটা বোধ হয় সারা দেশে একমাত্র বারৈইয়ারঢালা বনেই আছে।

আলোচিত পোস্ট


ঢাকার মগারা...!(তাজমহল ভ্রমণ)

ঢাকার মগারা...!(তাজমহল ভ্রমণ)

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

মরক্কোতে ভুরিভোজ

মরক্কোতে ভুরিভোজ

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

আজকের ছবি-২৩-১১-১৭

আজকের ছবি-২৩-১১-১৭

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭