অ্যাডভেঞ্চার

"রহস্যময় আলীর সুড়ঙ্গ"

আলীর সুড়ংগ নিয়ে অনেক মিথ কল্পকথা শুনে এখানে যাবার জন্য একটা ফ্যাসিনেসন তৈরি হয় আমাদের মধ্যে। তবে কেমন যাত্রাপথ হতে পারে সেইটা নিয়ে ছিল অপর্যাপ্ত ধারণা।

উত্তাল সমুদ্রে সেন্টমারটিন......

সমুদ্র শুধু গর্জন করছে, এক, একটা ঢেউ ৬-৮ ফিট উঁচু হয়ে সামনে এসে আছড়ে পড়ছে! বাঁধা স্পীডবোট গুলো কাগজের নৌকার মত লুটোপুটি খাচ্ছে সমুদ্রর ঢেউ আর পাড়ের মাঝখানে!

রিছাং ঝর্ণা- উচ্ছ্বাস ও উৎকণ্ঠা

অনেক অনেক সবুজ, হালকা শীতের শিহরণ, কাছে-দূরের পাহাড় আর শিশির জড়ানো ঘাস ও পথ পেরিয়ে, একটি টং ঘরের ছায়ায় সাময়িক বিশ্রাম।

বিলাইছড়ি ট্রেইল- ধুলোবন ছড়া ঝর্না

পুরো ট্রেইল শেষ করতে ৫-৬ ঘন্টা সময় লাগবে। এই ট্রেইলের একেবারে শেষে সবচেয়ে সুন্দর ধুলোবন ছড়া ঝর্না পাবেন।

রাঙ্গামাটি ট্যুর:- ধুপপানি ঝর্না..

ঘুরে আসলাম কাপ্তাই এর বিলাইছড়ি উপজেলার ধুপপানি ঝর্না থেকে। ধুপপানি ঝর্নার বিশালতার কাছে ক্ষনিকের জন্যে হলেও আপনার নিজেকে তুচ্ছ মনে হবে...

বৃত্তে আমিয়াখুম

আমিয়াখুমের রাস্তা বেশ কষ্টদায়ক কোন সন্দেহ নেই, কিন্তু ঐ কষ্টের প্রতিটা মুহূর্ত আপনি উপভোগ করবেন এইটুকু হলফ করে বলতে পারি। তবে হুট করে চলে না গিয়ে কিছুটা প্রস্তুতি নিয়ে গেলে আরো ভালো উপভোগ করতে পারবেন। শুভ হোক প্রতিটি ভ্রমণ।   

পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি দেখেছেন যিনি!

অন্তত শতায়ু হোন আপনি ডেভিড অ্যাটেনবোরো, আপনাকে ভীষণ প্রয়োজন আমাদের, মানব জাতির, সমস্ত প্রাণী জগতের, এই নীল গ্রহটার।।

ভয়াল সুপ্তধারা, আকাশচুম্বী সহস্রধারা, নিষ্প্রাণ বাঁশবাড়িয়া

যারা সেফলি ট্র‍্যাকিং করতে চান এবং এডভেঞ্চারপ্রিয়, তাদের জন্য একেবারে আদর্শ জায়গাটির নাম সীতাকুণ্ড।

চীনের মাকড়সামানবী

লিও দেঙপিং-এর   আরেক নাম চীনের “মাকড়সামানবী”! চীনের গুই জো রাজ্যের উঁচু সব দেয়াল ও খাড়া পাহাড়ে কোনরকম দড়ির সাহায্য ছাড়া উঠে উঠে এই খেতাব তিনি পেয়েছেন।

গ্রোটো মাউন্টেনে অ্যাডভেঞ্চার

প্রকৃতির বিস্ময়কর খেলায় অনেক বিচিত্র পাহাড়ি ফুলেরও দেখা মিললো। বার বার নজর কেড়ে নিচ্ছিলো সূর্যমুখীর ফুলের মতো দেখতে একটা পাহাড়ি মায়াবী ফুল। নাম Blanket Flower (Gaillardia aristata)

ঘুরে আসুন সীতাকুণ্ড ইকোপার্ক।

নামার পথে মাঝপথ আসলে দেখতে পাবেন সুপ্তধারা ঝর্ণা নামার পথ প্রায় ৬০০ মিটার সিঁড়ি বেয়ে নামতে হবে। তবে আপনার কষ্ট দূর হয়ে যাবে ঝর্ণার সৌন্দর্য দেখে।

রাতে আমি সূর্যোদয়ের ছবি তুলি

এই দ্বীপে পাঁচ মাস দিন, চার মাস রাত, দেড় মাস সকাল আর দেড় মাস বিকেল।

ঝর্ণায় একদিন

ঝর্ণাটার আকৃতি ভীষণ সুন্দর, যদিও খুব উঁচু না, তবে দেখলে মন ভাল হয়ে যাবে নিঃসন্দেহে। আমার সবচেয়ে ভালো লাগে ঝর্ণার সামনে যে ছোটখাটো জলাশয়ের সৃষ্টি হয় তাঁর মধ্যে ডুবে থাকা। শীতল আর স্বচ্ছ পানির পরশটাই অন্যরকম! পায়ের নীচে নেই কোন কাঁদা, শুধু পরিষ্কার বালি আর পাথর।  

নাপিত্তাছড়া ট্রেইল-টিপরা,কুপিকাটা, বাঘবিয়ানি, বান্দরকুম, মিঠাছড়া্

দয়া করে অযথা পলিথিন, চানাচুর চিপসের প্যাকেট, আজেবাজে অপচনশিল জিনিস ফেলে প্রকৃতির ক্ষতি করবেন না। যা নিয়ে যাবেন তা ফিরিয়ে আনবেন। আপনার পরবর্তী প্রজন্ম যাতে আপনার মতোই প্রকৃতি দেখে মুগ্ধ হয়।

আলোচিত পোস্ট


বাংলাদেশের প্রজাপতি (২)

বাংলাদেশের প্রজাপতি (২)

বুধবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭

"রহস্যময় আলীর সুড়ঙ্গ"

বুধবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭

"তেওতা জমিদার বাড়ী"

বুধবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭

আজকের ছবি-১৩-১২-১৭

আজকের ছবি-১৩-১২-১৭

বুধবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭

একটি সাইকেল নিয়ে ভ্রমণ!

একটি সাইকেল নিয়ে ভ্রমণ!

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৭