এই প্ল্যান অনুসরণ করলে কমবেশি ৩৫০০ টাকার মধ্যেই ঘুরে আসতে পারবেন সেন্টমার্টিন ও কক্সবাজার। তবে প্রথমেই বলে নিই, এই প্ল্যানটি সবার জন্য নয়। এই পরিকল্পনায় ঘুরে আসতে চাইলে আপনাকে হতে হবে উদ্যমী, কষ্টসহিষ্ণু। থাকতে হবে যেকোন পরিস্থিতিতে মানিয়ে চলার ক্ষমতা। মনে রাখতে হবে ঘুরতে যাওয়া কোন বিলাসিতা নয়, এবং এটি মনের আনন্দের ব্যাপার, শরীরের নয়। এই শর্তগুলো পড়ার পরও যদি আপনার ভ্রু না কুচকে যায় তাহলেই আপনি এই প্ল্যানের জন্য ফিট, একদম অল্প টাকায় ঘুরে আসতে পারবেন সেইন্টমার্টিন থেকে।

জাহাজের পিছু পিছু উড়ে চলা গাংচিল জাহাজের পিছু পিছু উড়ে চলা গাংচিল

চলুন দেখে নেয়া যাক খরচের তালিকা-

কমলাপুর থেক চট্টগ্রামের মেইল ট্রেন -১৫০ টাকা

চট্টগ্রাম রেল স্টেশন থেকে ইজি বাইকে নতুন ব্রীজ -১০ টাকা

হানিফ বাসে কক্সবাজার -২০০ টাকা

কক্সবাজারে হোটেল সী হিলে এক রাত থাকা -২০০ টাকা

সী হিল থেকে কক্সবাজার লিংক রোড অটো -২০ টাকা

টেকনাফের লোকাল বাস -১২০ টাকা

ট্রলার ভাড়া -২৬০

সেন্টমার্টিনের মাছ ধরা ট্রলার সেন্টমার্টিনের মাছ ধরা ট্রলার

[আমরা গিয়ে শিপ মিস করেছি আর অতিরিক্ত এক দিন টেকনাফে থাকার বাজেট বা ইচ্ছা কোনটাই ছিলো না বলে ট্রলারে গিয়েছি। তবে না যাওয়াই ভালো। টেকনাফের মানুষজনের ব্যপারে আমাদের অভিজ্ঞতা খুব একটা সুখকর না। সে হিসেবে কক্সবাজার এবং সেন্ট মার্টিন, দুই জায়গাতেই মানুষজন অনেক বন্ধুভাবাপন্ন]

নীলজলে উজ্জ্বল সূর্যালোকের প্রতিফলন নীলজলে উজ্জ্বল সূর্যালোকের প্রতিফলন

সেন্ট মার্টিনের রিসোর্ট ভাড়া জনপ্রতি ২০০ টাকা, দুই রাত। পাঁচজনের জন্য ৫০০ টাকা প্রতিরাত।

[বে টাচ রিসোর্ট, তবে আমরা আসার দিন নাম পরিবর্তন করেছে। ম্যানেজার আনোয়ার ভাই খুব ভদ্রলোক। আসার সময় উনি আবার অনেক কমে শিপের টিকেট কেটে দিয়েছেন]

ভেজা বালুতট ভেজা বালুতট

ফেরার শিপ ভাড়া -১৫০ টাকা [ এত কমে যেকোন সময় না পাওয়াটাই স্বাভাবিক, সাধারনত শিপের ভাড়া আপডাউন টেকনাফ থেকে ডেকে সর্বনিম্ন ৫৫০ টাকা লাগে, সেখানে আমাদের লেগেছে ৪১০ টাকা। আপনাদের প্ল্যানের সাথে বাকি ১৫০ টাকা যোগ করে নিতে পারেন]

ফেরার পথেও সংগ দেয় গাংচিল ফেরার পথেও সংগ দেয় গাংচিল

টেকনাফ থেকে কক্সবাজার জিপ -১৪০ টাকা

[আসার সময় মেরিন ড্রাইভ দিয়ে এসেছি। ইনানী, হিমছড়িও দেখা হয়ে গেছে, নামিনি যদিও]

কক্সবাজার থেকে ঢাকার বাস (৮০০ টাকা)

[৫ টায় শিপ থেকে নেমে সেদিনের চট্টগ্রামের ট্রেন পাবার সম্ভাবনা অনেক কম ছিলো বলে বাসে। টেকনাফ থেকে ঢাকা ৯০০ টাকা ভাড়া]

প্রবালদ্বীপের প্রবাল প্রবালদ্বীপের প্রবাল

এই হচ্ছে মোটামুটি বেসিক খরচ। খাওয়া বাবদ আমাদের প্রতিবেলা গড়ে ৮০-১০০ টাকা খরচ হয়েছে। যদিও সেন্টমার্টিনে খাবারের দাম তুলনামূলক বেশি, কয়েকজন একসাথে থাকলে মাছ-মাংস শেয়ার করে খেয়ে খাবারের খরচ কমিয়ে আনতে পারেন।

ঘরে ফেরা অস্তায়মান সূর্যের আলোয় ঘরে ফেরা অস্তায়মান সূর্যের আলোয়

সেন্টমার্টিনে সাইকেল পাবেন ঘন্টাপ্রতি ৪০ টাকায়। ডাব এই সময়ে অনেক কম তাই দাম ও বেশি- ৬০ টাকা। নভেম্বরের দিকে গেলে ২০-২৫ টাকায় পাওয়া যায়। সেন্ট মার্টিনের খাবারের মান খুব একটা ভাল না। টেকনাফ থেকে কিছু শুকনা খাবার নিয়ে গেলে কাজে দিবে। কক্সবাজারের আচারের উপর আমি বিরক্ত। ২ বার এনে দুইবার ই ধরা খাইসি। আনলে দেখে শুনে আনবেন। বাকি জিনিসপত্র ভালই লেগেছে।

জীবিত ও মৃত প্রবালের মেলা জীবিত ও মৃত প্রবালের মেলা

আমাদের জনপ্রতি খরচ হয়েছে প্রায় ৩৩০০ টাকা। ব্যাকপ্যাকার ট্রাভেলারদের জন্য এটা মনে হয় খুব ভালো একটা ভ্রমণ পরিকল্পনা হতে পারে। আমরা ৫ জন ছিলাম গ্রুপে।

জাইল্যার দ্বীপ জাইল্যার দ্বীপ

পুনশ্চ:- যে কোনো জায়গায় ঘুরতে গেলে লোকাল লোকজনের সাথে কোনো ঝামেলায় জড়াবেন না। যে কোনো সমস্যায় ট্যুরিস্ট পুলিশের সহায়তা নিন। তারা বেশ একটিভ। টেকনাফে আমাদের একটা ছোট্ট ঝামেলার জন্য আমরা ট্যুরিস্ট পুলিশের সহায়তা নিয়েছিলাম। তারা খুব ভালোভাবে সহায়তা করেছেন আমাদের।