ঘুরে আসলাম কাপ্তাই এর বিলাইছড়ি উপজেলার ধুপপানি ঝর্না থেকে। ধুপপানি ঝর্নার বিশালতার কাছে ক্ষনিকের জন্যে হলেও আপনার নিজেকে তুচ্ছ মনে হবে...

ধুপপানি ঝর্নার বিশালতাধুপপানি ঝর্নার বিশালতা

যেভাবে যাবেন:-
ঢাকা-কাপ্তাই বাসে করে, তারপর কাপ্তাই জেটি ঘাট থেকে বোট রিজার্ভ করে উলুছড়ি, সময় লাগবে ৪-৪:৩০ ঘন্টার মত। সাথে করে অবশ্যই সবাই NID নিয়ে যাবেন, আর্মি চেক পোস্টে আছে! তারপর সেখান থেকে হাঁটা শুরু, ঘন্টা দেড়েক সময় লাগবে হেঁটে/ ট্র্যাকিং করে ধুপপানিপাড়ায় পৌঁছাতে। ধুপপানিপাড়া থেকে ৩০ মিনিট নিচে নামলেই “ধুপপানি” ঝর্না।

ধুপপানি ঝর্না
 ধুপপানি ঝর্না

প্রাকৃতিক রঙধনুপ্রাকৃতিক রঙধনু

এই ঝর্নার মাঝামাঝি ১টি ধাপে ১জন “ভান্তে” (বৌদ্ধদের ধর্ম গুরু) বিগত প্রায় ১০বছর যাবত ধ্যান করেন। শুধুমাত্র রবিবার উনি আহার গ্রহন করেন বিধায় এই ঝর্নায় রবিবার যাবার ক্ষেত্রে তেমন কোন বিধি-নিষেধ বা কড়াকড়ি থাকে না। সপ্তাহের অন্য যেকোন দিন গেলে কিছু শর্ত সাপেক্ষে যেতে দেয় যেমন - কোন আওয়াজ করা যাবে না, হৈ-হুল্লোড় করা যাবে না। তবে রবিবার গেলে এই ধরনের শর্ত প্রযোজ্য হয় না।
 

অদ্ভুত সুন্দর একটা ঝর্না।অদ্ভুত সুন্দর একটা ঝর্না।

অদ্ভুত সুন্দর একটা ঝর্না। এই ঝর্নার বিশালতার কাছে আপনার নিজেকে তুচ্ছ মনে হবে। এই ঝর্নায় আপনি প্রাকৃতিক রঙধনু দেখতে পাবেন...

ধুপপানি ঝর্নাধুপপানি ঝর্না