অভিজ্ঞতা

মানালির মুগ্ধতায়...... 

উচ্ছ্বাস আর উদ্দীপনা, মায়া আর মাদকতা, আবেগ আর আকুলতায় ভরা। ঝকঝকে-তকতকে, রঙে-রঙে রঙিন আর লোকে-লোকে লোকারণ্য প্রতিটি ক্ষণ, প্রতিটি মুহূর্ত, প্রতিটি কোন..

সিলেট পানথুমাই ওয়াটারফল।

পানথুমাই গ্রামে আগমন ঘটে দেশি-বিদেশি বহু পর্যটকদের। আর পানথুমাই-এর সবচেয়ে আকর্ষনীয় স্থান হলো এই ‘মায়াবতী ঝর্ণা’।

হিমেলের হলুদ হ্যামক...!

ওটা ব্যাগে ওঠে, পাহাড়ে, সমুদ্রে, জঙ্গলে ঘুরে বেড়ায় আবার সেই ব্যাগে করেই বাসায় ফিরে আসে। ঝোলানো তো দুরের কথা, বের করার মত পরিবেশই পাওয়া যায়না! 

ভ্রমণে বিপদ ও রোমাঞ্চ....

পথে পাহাড়ি ধসে রাস্তা হারিয়ে গিয়েছিল পাহাড়ের খাঁদে...!! 

ঘরের আঙিনায় যেন নীল সমুদ্র ডাকছে আমায়

সমুদ্রে স্নান আর পূর্ণিমা রাতে ভরা চাঁদের আলোতে গভীর রাত পর্যন্ত খাটে শুয়ে সেই আলোর সাথে ঢেউয়ের গান শুনার মজাই আলাদা

৫০ বছরের ব্যাকপ্যাক আর ৬৫ বছরের ট্রেকারের গল্প! 

যে ব্যাকপ্যাকের বয়স অন্তত ৫০ বছর! এক জার্মান ট্রেকার ১৯৬৯ সালে এই ব্যাকপ্যাকটি ট্রেক শেষে উপহার দিয়ে যায় আমার নেপালি বন্ধুকে

ভ্রমণ ডাইরি : ভাষা বিভ্রাট

ভাবছি এই ট্রিপ না করে দেশে ফিরে গেলে কি বোকামী করতাম -- কিন্তু জাহাজ চলছে তো চলেই দুইঘন্টা হয়ে গেছে -- অনেক আগেই তো উল্টোদিকে ফিরে আসার কথা ছিল

নৌকা ভ্রমণ

দু পাশে পাহাড় , মেঘ , জুমঘর , পানির অবারিত ঢেউ, মাঝে মাঝে ঝর্নার মত পানির কিছু উৎস। রাজাপাথর এ ইয়া বড় বড় পাথরের পাশ কেটে যাওয়া এক কথায় অনন্য

তাজমহলে মমতাজের দেখা!!! 

মন ভরে উপভোগ তো করা যাবে, পাশে তো বসা যাবে, ছুঁয়ে তো দেখা যাবে, কিছু সময় তো কাটান যাবে, তোর পাশে, তোর সাথে, তোর ছায়ায়, শ্বেত পাথরের ভালোবাসার পরশে, মুগ্ধতায়, মোহাচ্ছন্নতায়, বাঁধা তো যাবে তোকে সীমাহীন মায়ায়!

নেপালের সীমাহীন সৌন্দর্য ! (১ম পর্ব)

তিনশ শতাব্দীতে তৈরি হওয়া অনুপম স্থাপনাগুলো এখানে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অনেক কিছুই ভেঙ্গে ধ্বংসস্তূপ, সেই সুন্দর মন্দিরগুলো আছে, কিন্তু তার মাথার মুকুটগুলো আর নেই!

পৃথিবীর ২য় ভয়ংকর এবং এক্সাইটিং রেল ভ্রমণের অভিজ্ঞতা

ব্রিটিশরা শ্রীলংকার সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্কের উন্নতির জন্যে এই সেতু তৈরি করেছিল। এই সেতুটিকে আবার মাঝামাঝি জায়গায় দুই ভাগে খুলে দিয়ে, নীচ দিয়ে জাহাজ চলাচলও করতে পারে।

অবাক কাস্টমস আর ইমিগ্রেশন...

অল্পস্বল্প টেনশন কাজ করছিল, যেহেতু প্রথমবার পরিবার নিয়ে দেশের বাইরে যাচ্ছি। একা বা বন্ধুদের সাথে তো বহুবার দেশের বাইরে গিয়েছি। তবুও কাস্টমস আর ইমিগ্রেশনের বিভীষিকা নিয়ে বেশ চিন্তায় ছিলাম।

পৃথিবীর ২য় দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত

উত্তর দিকে এক ছোট বালুর টিলা দেখতে পারবেন। ওই বালুর টিলাতে উঠে আরো সুন্দর ভাবে সমুদ্রকে অবলোকন করতে পারবেন। সে অন্য এক অনুভুতি।

থরে থরে সাজানো টিউলিপ ফুল

কী রং নেই সেখানে - লাল, কমলা, হলুদ, বেগুনি, সাদা! এক লালের ই যে কত শেড দেখলাম।

কালাপোখারি: স্বপ্নের সান্দাকুফু

সময়টা এতো দারুণ কাটে যে বলে বা লিখে বোঝানো মুশকিল। দুপুরে এখানে পৌঁছে লাঞ্চ করে বাকি সময়টা হেটে, হেটে বা বসে বসে কাটিয়ে দেয়া

আলোচিত পোস্ট


ভ্রমণে যখন নারী একা

ভ্রমণে যখন নারী একা

রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭

আজকের ছবি-২৪-০৯-১৭

আজকের ছবি-২৪-০৯-১৭

রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭

পাহাড়ে আলিশান ক্যাম্পিং

পাহাড়ে আলিশান ক্যাম্পিং

শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭

আজকের ছবি-২৩-০৯-১৭

আজকের ছবি-২৩-০৯-১৭

শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭

আকাশ জোনাকির নীড়ে

আকাশ জোনাকির নীড়ে

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭