অভিজ্ঞতা

সীমানা ছাড়াতে চাই

আকাশে তো ওড়া হল, এবার শখ চাপল, পানির নিচে যাওয়ার! ভাবনা মতই কাজ, চলে গেলাম, মালায়শিয়া- থাইল্যান্ড বর্ডারের অপরূপ সুন্দর এক দ্বীপে।

৫০০০ টাকাতেই রাজার হালে ঘুরে আসুন বাংলার না কিন্তু, আসল দার্জিলিং 

ব্যাক করার সময় দার্জিলিং থেকে লোকাল শেয়ার জীপে করে মিরিক চলে যেতে পারেন। সেখান থেকে শিলিগুড়ি। শিলিগুড়ি থেকে বাসে করে চেংরাবান্ধা বাইপাস তারপর চেংরাবান্ধা বর্ডার

ঢাকা থেকে কিভাবে থাইল্যান্ডের ভ্রমণ ভিসার জন্য আবেদন করবেন?

আপনার একটা পার্সোনাল লেটার – যেখানে আপনি বলবেন যে আপনি ঘুরতে যেতে চান, ঘুরতে যাওয়ার তারিখ সহ। আপনি যদি আপনার পরিবারকে সাথে নিতে চান তাহলে তাদের পাসপোর্ট এর নাম্বার আর নাম সহ বলবেন যে তাদের খরচ আপনি বহন করবেন।

এক টুকরো স্বর্গ সান্দাকফু!

১২০০০ ফিট উপরের এই স্বর্গ থেকে বিশ্বের পাচটি পর্বতের মধ্যে চারটিই( এভারেস্ট, কাঞ্চনজঙ্ঘা, লোতসে, মাকালু) দেখতে পাবেন সব পাশাপাশি

নোবেল জয়ীর সাইকেল

যেখানে হাঁটলেই আরও অনেক নোবেল জেতা কালজয়ী মানুষদের ব্যবহার করা জিনিশ দেখা যায়, দেখা যায় তাদের বিভিন্ন উক্তি, আর আবিষ্কার সম্পর্কে পাওয়া যায় ধারনা

একটি নাইটিংগেল, সবুজ বাগিচা এবং কবি কিটসের বাড়ী

বাড়ীর সামনে যখন পৌছালাম ততক্ষণে বরুণ দেব খানিকটা কৃপা করেছেন, মেঘের ফাঁকে চুইয়ে চুইয়ে আসা শুরু করেছে সূর্যরশ্মি, শ্যামলী নিসর্গ তখন উদ্ভাসিত আপন সবুজ আলোয়, লতা-পাতা-ঘাস-গাছ ঘেরা সফেদ ভবনটি।

কলকাতা থেকে দার্জিলিং (ভিডিও সহ)

কলকাতা থেকে দার্জিলিং যাওয়ার অভিজ্ঞতা।

ভূস্বর্গ কাশ্মীর ভ্রমণের আদ্যোপান্ত। (ইবন বতুতা পর্ব শেষ)

ভিতরে ঢুকে কিছুই করলাম না শুধু হিমালয় চুড়া আর তার ঢালে সগর্বে দাড়িয়ে থাকা পাইন গাছ দেখার জন্যে সাধু স্টাইলে সবুজ ঘাসের উপর বসে রইলাম। আমি কি সত্যি দেখছি নাকি ছবি

মৈত্রী ট্রেন দিয়ে ঢাকা থেকে কলকাতা যাবার ও আসার অভিজ্ঞতা (ভিডিও সহ)

ইন্ডিয়ান মানুষ অনেক হেল্পফুল, কিছু না চিনলে না জানলে যে কাউকে জিজ্ঞেস করেন উত্তর দিবে। কলকাতার মানুষ বাংলা থেকে হিন্দিই বেশি বলে।

পাহাড়ের স্বর্গ উদ্যানে...... (রিশপ)

সামনে যতদূর চোখ যায়, শুধু পাহাড় পাহাড় আর পাহাড়। ডান থেকে বামে আর বাম থেকে ডানে রাশি রাশি পাহাড় চুড়ারা যেন ডাকছে আর হাসছে ওর মাধুর্যতা আর সম্মোহন দিয়ে

ভূস্বর্গ কাশ্মীর ভ্রমণের আদ্যোপান্ত। (ইবন বতুতা পর্ব ০৩)

বাগানে থাকা লোকটি উত্তর দিলে ভূস্বর্গে থাকা কিছু ফুল আল্লাহর দেওয়া কুদরত। সেই ফুল দিয়ে চার দিকে আচ্ছাদিত একটি কাঠের বেঞ্চ এ বসলাম

কন-টিকি জাদুঘর ও থর হেয়ারডালের সারা জীবন

কন-টিকি জাদুঘর অসলো শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে খানিকটা দূরে সবুজে ছাওয়া উদ্যান আর সমুদ্রের সান্নিধ্যে অবস্থিত, মূল ভবনের সামনে এক ইস্টার দ্বীপের প্রতিমূর্তি।

যাহ, কুত্তা! কাম বয়েস!!

এটি কি কোন গল্প বা গল্পের নাম হতে পারে?খুবই অদ্ভুত এক নাম হয়ে গেলনা, এই গল্পের? হ্যাঁ আসলেই খুবই অদ্ভুত নাম, কিন্তু এটি-ই এই গল্পের সবচেয়ে সুন্দর আর স্বার্থক নাম! অন্তত আমার কাছে।

ফ্রাম নামের মেরু জাহাজ

ক্যাপ্টেনের পোশাক, পড়ার বই, নানা ধরনের মানচিত্র সবই নান্দনিক ভাবে সাজিয়ে রাখা আছে পরম মমতায়, দেখে মনে হয় যে কোন মুহূর্তেই ক্যাপ্টেন এসে হাজির হবেন ঠোঁটে পাইপ নিয়ে!

ভূস্বর্গ কাশ্মীর ভ্রমণের আদ্যোপান্ত। (ইবন বতুতার পর্ব ০২)

কাশ্মীরি ঈগল আর বুনফুলের বাহার আর পাহাড়ি উচু নিচু সাপের মত আকাবাকা খাঁড়া পথ এবং জওহর টানেল যা ৩ কিঃমিঃ বিস্তৃত। তার সাথে অজানা পথের লম্বা রাস্তা যার পাশেই আইসক্রিমের মত পাহাড়ের গায়ে লেপটে থাকা বরফ।

আলোচিত পোস্ট


বজ্রনিনাদী জলরাশির ইতিকথা

বজ্রনিনাদী জলরাশির ইতিকথা

শনিবার, জানুয়ারী ১৯, ২০১৯

লোহিত খাঁড়ি আর কৃষ্ণ নদীর গল্প (পর্ব-২)

লোহিত খাঁড়ি আর কৃষ্ণ নদীর গল্প (পর্ব-২)

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৯

জিপলাইনে দুহাজার ফিট

জিপলাইনে দুহাজার ফিট

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৩, ২০১৯